সৈয়দপুরে বিএনপি সমর্থিতদের সংগঠনে ভেড়ানোর প্রতিবাদে স্বেচ্ছা সেবকলীগের একাংশের সংবাদ সম্মেলন


মিজানুর রহমান মিলন, স্টাফ রিপোর্টারঃ

নীলফামারীর সৈয়দপুরে তৃনমুলের কর্মীদের বাদ দিয়ে অর্থের বিনিময়ে বিএনপি সমর্থিতদের দলে ভিড়িয়ে পদ পদবী দেয়ার অভিযোগ উঠেছে উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি আজম আলী সরকার এবং সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম রয়েলের বিরুদ্ধে। তাদের স্বেচ্ছাচারিতা ও অনিয়মতান্ত্রিকভাবে সংগঠন পরিচালনার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে উপজেলা স্বেচ্ছা সেবক লীগের একাংশ। 

আজ সোমবার শহরের সৈয়দপুর প্লাজার একটি চাইনিজ রেস্তোরাঁয় ওই সংবাদ সম্মেলন করা হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের উপজেলা শাখার সহ-সভাপতি সরকার মারুফ ইসলাম রকি। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগ  সৈয়দপুর শাখার ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন গত ২০১৭ সালের ৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয়। 

এতে আজম আলী সরকার সভাপতি এবং কাজী নজরুল ইসলাম রয়েলকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। সে সময়  নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল অতি শীঘ্রই যেন পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। কিন্তু সম্মেলনের তিন বছর পূর্ণ হতে চললেও এখন পর্যন্ত পরও পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়নি। ঘোষিত ওই কমিটির মেয়াদ রয়েছে আগামী ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত। নির্ধারিত সময়ে উপজেলা শাখার পুর্ণাঙ্গ কমিটি করতে না পারার সকল ব্যর্থতার দায় সভাপতি ও সম্পাদকের বলে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়।

অভিযোগ করা হয় সংগঠনের সভাপতি পদ পেয়ে আজম আলী সরকার নিজের পকেট ভারী করতে অর্থের বিনিময়ে বিএনপির অনুসারী তথা সরকার বিরোধীদের সংগঠনে জায়গা করে দিচ্ছেন। আর এতে সংগঠনের ত্যাগী ও তৃনমূলের নেতাকর্মীরা বাঁধা দিলে পুর্ণাঙ্গ কমিটি না করে উল্টো তাদেরই সংগঠন থেকে বাদ দেয়ার হুমকি দেন সভাপতি আজম আলী সরকার।

লিখিত বক্তব্যে সহ সভাপতি সরকার মারুফ ইসলাম রকি বলেন সভাপতি আজম আলী সরকার সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রাজিব কুমার রায়কে সংগঠনটির উপজেলা কমিটিতে সাংগঠনিক সম্পাদক পদ দেয়ার জন্য টাকা দাবি করেন। কিন্ত সে সভাপতির দাবিকৃত টাকা  দিতে অস্বীকৃতি জানালে সভাপতি আজম আলী সরকার ফেসবুকে রাজিব কুমার রায়কে সংগঠন থেকে বহিস্কারের একটি স্ট্যাটাস দেন। 

সভাপতির মত সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম রয়েলও অর্থের বিনিময়ে স্বাধীনতা বিরোধীদের সংগঠনের ভেড়ানোর অপচেষ্টায় সভাপতি আজম আলী সরকারকে সহযোগিতা করে আসছেন। তাদের উভয়ের যোগসাজশে মোটা অংকের অর্থ দিয়ে বিএনপি অনুসারীদের নিয়ে বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটি গঠন  করা হচ্ছে। 

সম্প্রতি উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়ন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এতে যুবদলের সাবেক নেতা আবু রায়হান পলককে সভাপতি ও বিএনপির সক্রিয় কর্মী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কটূক্তিকারী বাদল মিয়াকে সাধারণ সম্পাদকের পদ দেয়া হয়। এরই প্রতিবাদে সংগঠনের একাংশের নেতাকর্মীরা মানববন্ধনও করেছেন। 

এর আগেও সভাপতি আজম আলী সরকারের বিরুদ্ধে উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নে ভিজিএফের চাল বিতরণের স্লীপ বিক্রির অভিযোগ উঠে। সে সময় ভিজিএফ বঞ্চিতরা শত শত নারী পুরুষ আজম আলী সরকারের বিরুদ্ধে এলাকায় বিশাল মানববন্ধনও করেন 

বলে অভিযোগে বলা হয় ইতিমেধ্যে একাধিকবার বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সম্পাদকের স্বেচ্ছাচারিতা, অর্থের বিনিময়ে বিএনপির  অনুসারী নেতাকর্মীদের দলীয় পদ প্রদান,অসাংগঠনিকভাবে দলের কর্মকান্ড পরিচালনার বিষয়ে নীলফামারী জেলা, ও কেন্দ্রীয় কমিটিকে লিখিত ও মৌখিকভাবে অভিযোগ করা হয়। 

কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে কোন রকম সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি আজও । সংবাদ সম্মেলন থেকে তাদের অসাংগঠনিক কর্মকান্ডের বিষয়ে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহনের জোর  দাবি জানানো হয়। অন্যথায় আগামীতে তাদের অসাংগঠনিক কার্যকলাপের ব্যাপারে কঠোর আন্দোলন কর্মসূচির হুঁশিয়ারী দেন  সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের একাংশের নেতাকর্মীরা। 

এসময় স্বেচছাসেবক লীগ নেতা একরামুল হক মানিক, বিদ্যূৎ আলম, শাহীন প্রামানিক, রাজিব কুমার রায়, কালিদাস মহন্ত, সামসুল হক জয়, মাহবুব চৌধুরীসহ  উপজেলা, পৌর ও ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য