নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাবাকে পুলিশে ধরিয়ে দিলেন মেয়ে


ক্রাইম রিপোর্টার অবিবাহিত ২০বছর বয়সের মেয়েকে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করেছে এক অযোগ্য চরিত্রহীন পিতা।ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে মেয়ের শ্লীলতাহানি ঘটনায় সেই মেয়ে এলাকাবাসীর সহায়তায় তার পিতাকে পুলিশের কাছে ধরিয়ে দিয়ে পিতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের দক্ষিণ রাজিব বড়বাড়ি গ্রামের এই ঘটনায় সোমবার(১১মে) দুপুরে পুলিশ মেয়েটির পিতা আব্দুল্লাহকে(৫০) গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে প্রেরণ করেন। মেয়েটি নিজে বাদী নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে যৌন হয়রানীর মামলা দায়ের করেন। এলাকাবাসী মামলা সূত্রে জানা যায়, উক্ত গ্রামের মৃত আজগর আলীর ছেলে আব্দুল্লাহর স্ত্রী চার বছর আগে মৃত্যু বরন করেন।আবদুল্লাহর একমাত্র মেয়ে ঢাকার রামপুরা এলাকার একটি বাসায় গৃহপরিচারিকা হিসাবে কর্মরত থাকায় আবদুল্লাহ তাঁর একমাত্র ছেলেকে নিয়ে বাড়িতে বসবাস করছিল। দুইমাস আগে মেয়েটি বাড়িতে আসেন। রবিবার(১০মে) রাতে তারাবির নামাজ শেষ করে মেয়েটি ঘুমাতে গেলে বাবা আবদুল্লাহ্ তাঁর মেয়ের ঘরে প্রবেশ করে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করে। ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে শ্লীলতাহানি ঘটালে মেয়েটির চিৎকারে এলাকাবাসী ছুটে এসে আবদুল্লাহকে আটক করে। এরপর থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে মেয়েটির বাবাকে গ্রেফতার করেন।  ব্যাপারে মেয়েটি জানায়, আমি ককনো ভুলেও ভাবিনি আমার বাবা এমন জঘন্যতম কাজ করতে পারে। আমি এমন বাবা নামের কলঙ্ক এই বাবার কঠিন বিচার চাই। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আব্দুল আজিজ জানান, আসামী আদালতে নিজ মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টায় শ্লীলতাহানির কথা স্বীকার করে জবানবন্দী দিয়েছেন। জবানবন্দী শেষে আদালত তাকে জেলা কারাগারে প্রেরণ করে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য