“ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ” জাতীয় দিবস হিসেবে উৎযাপন উপলক্ষে পঞ্চগড়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ ও আলোচনা সভা


মো. কামরুল ইসলাম কামু, পঞ্চগড় প্রতিনিধিঃ
 

পঞ্চগড়ে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ জাতীয় দিবস উৎযাপন উপলক্ষে বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার (৭ই মার্চ) বিকেলে পঞ্চগড় জেলা প্রশাসন ও পঞ্চগড় জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের আয়োজনে পঞ্চগড় জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের হলরুমে এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

পঞ্চগড়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আজাদ জাহানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ড. সাবিনা ইয়াসমিন। সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পঞ্চগড় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আনোয়ার সাদাত স¤্রাট,পুলিশ সুপার ইউসুফ আলী,অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সরকার মোহাম্মদ রায়হান, পঞ্চগড় সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো আরিফ হোসেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপ কমিটির তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক নাইমুজ্জামান মুক্তা,পঞ্চগড় জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডের সাবেক ডেপুটি ইউনিট কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মো সায়খুল ইসলাম ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আলাউদ্দীন প্রধান,পঞ্চগড় সদর উপজেলার সাবেক কমান্ডার মো ইসমাইল হোসেন,বীর মুক্তিযোদ্ধা এটিএম সারোয়ার হোসেন প্রমুখ।

এসময় সমাবেশ ও আলোচনা সভায় জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ, জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ সহ জেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এসময় বক্তারা বলেন, ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের মুল মন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধারা দেশ স্বাধীন করার লক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ডাকে সারা দিয়েছিলেন। পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠীর স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে দীর্ঘ ৯ মাস ধরে লড়ে দেশকে স্বাধীন করে এদেশের মানুষকে লাল সবুজের পতাকা এনে দিয়েছেন। ইউনেস্কো জাতির পিতার ৭ই মার্চের ভাষণকে ওয়াল্ড হ্যারিটেজের আওতাভূক্ত করেছে। এ সময় বক্তারা বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের চেতনাকে ধারণ করে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাসকে লালন করার দাবী জানান।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য