পঞ্চগড় জেলায় জমি নিয়ে বিরোধ- পাল্টাপাল্টি মামলা হামলা ঘটনায় সংঘর্ষে আহত- ২৩


মোঃ কামরুল ইসলাম কামু, পঞ্চগড় প্রতিনিধিঃ

পঞ্চগড়ে জমি নিয়ে দ্বন্দের জেরে পৃথক তিনটি ঘটনায় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ২৩ জন আহত হয়েছেন। এসব ঘটনা ঘটেছে শনিবার (১৩ ফেব্রুয়ারী) সকালে ও দুপুরে পঞ্চগড়  সদর ও বোদা উপজেলায় । জেলার সদর উপজেলার অমরখানা ইউনিয়নের মহিপাড়া এলাকায় ২ জন ও হাফিজাবাদ ইউনিয়নের টোকাপাড়ায় ১৬ জন ও বোদা উপজেলার কাজলদিঘী কালিয়াগঞ্জের ইউনিয়নের তেলিপাড়ায় ৫ জন  আহত অবস্থায় পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে ভর্তি হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন। 

এদের মধ্যে নজরুল ইসলাম (৪৫) নামে একজনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। তবে পুলিশ জানিয়েছে এ নিয়ে জেলার দুই থানায় কোন মামলা করেনি কোন পক্ষই। জানা যায়, জেলার সদর উপজেলার হাফিজাবাদ ইউনিয়নের টোকাপাড়া গ্রামে এক একর জমি নিয়ে মজাহারুল ও আবু হানিফ পক্ষের মধ্যে ও একই উপজেলার অমরখানা ইউনিয়নের মহিপাড়া গ্রামে তরিকুল ইসলাম ও অমিরুল ইসলাম পক্ষের ১৩ শতক জমি নিয়ে  এবং বোদা উপজেলার কাজলদিঘী কালিয়াগঞ্জ  ইউনিয়নের তেলিপাড়ায় ৩৩ শতক জমি নিয়ে জাহের আলী ও আনারুল ইসলামের পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাগুলো ঘটে। 

শনিবার সকালে হাফিজাবাদ ইউনিয়নে টোকা পাড়া এলাকার মজাহারুল ইসলাম পক্ষের আহতরা হলেন তার চাচা নজরুল ইসলাম (৪৫), তার স্ত্রী জাহানারা বেগম(৩৫), মজাহারুল এর মা পতিজা বেগম(৫৫), বোন মাসুদা বেগম (৩১), মজাহারুল এর চাচাত ভাই জাহাঙ্গীর আলম(২৫), শাহিনা বেগম (৩১), রাশেদুল ইসলাম (২৬) এবং দাদা আসফ আলী সর্দার (৭০)। 

অপরদিকে আবু হানিফ পক্ষের আবু হানিফ (৪৯), তার স্ত্রী জুলেখা বেগম (৪৫) ছেলে  জুয়েল (১৭) তার ভাগিনা গোলাম মোস্তফা (৪৫) গোলাম মোস্তফার ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (২৪) এবং আবু হানিফের মেয়ের শ্বশুর মনসুর আলী (৫৫) আহত হয়েছেন। তাদের সকলের বাড়ি হাফিজাবাদ ইউনিয়নের টোকা পাড়া গ্রামে।  এছাড়াও সংঘর্ষের ঘটনা দেখতে আসা ইব্রাহিম (৪৫) নামে একজন মাথায় আঘাত নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছে। মজাহারুল এর মা পতিজা বেগম তার বোন মাসুদা বেগম আহত হয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে হাসপাতালে স্বজনদের সাথে রয়েছেন। ওই সংঘর্ষের ঘটনায় নজরুল ইসলামকে রংপুর মেডিক্যালে স্থানান্তর করা হয় ।সরেজমিনে হাসপাতালে গিয়ে জানা যায় তাদের এক একর জমি নিয়ে আদালতে মামলা হয়েছিল এর আগে। আবু হানিফ বলেন জমি আমার দখলে ছিল। 

আমি সকালে ওই ক্ষেতের পাশে চা বাগান তৈরী করছিলাম। হঠাৎ করেই মজাহারুল পক্ষের লোকেরা আমার উপর হামলা চালিয়েছে। হামলার সময় আমি ৯৯৯ এ কল করে পুলিশকে জানালে স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশ আমাদেরকে উদ্ধার করে। আমার বেহাই মনসুর আলীকেও বেধড়ক পিটিয়েছে মজাহারুলের লোকেরা। আমরা বর্তমানে সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছি।এদিকে মজাহারুলের বোন মাসুদা বেগম জানান, আদালতে মামলার রায়ে আমরা ওই জমির মালিকানা পেয়েছি কিন্তু আবু হানিফ জোর করে ওই জমি দখল করে রেখেছে। সে থানা কিংবা চেয়ারম্যানের ডাকে সাড়া দেয়নি।  এ কারনেই তাদের সাথে আমার ভাইয়ের সাথে সংঘর্ষ বাঁধে। আমরা থানায় মামলার প্রস্তুতি গ্রহণ করছি।অপর একটি ঘটনায় শনিবার সকালে সদর উপজেলার অমরখানা ইউনিয়নের মহিপাড়া গ্রামে তরিকুল ইসলামের (৫০) সাথে একই এলাকার আমিরুল ইসলামের ১৩ শতক জমির বাঁশ কাটা নিয়ে সংঘর্ষে বাঁধে। এসময় আহত হয়ে দুইজন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। বর্তমানে তরিকুল ইসলাম (৫০) তার স্ত্রী নাসিমা (৪০) সহ পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি আছে। 

অন্য আরেকটি ঘটনায় শনিবার দুপুরে বোদা উপজেলার কাজলদিঘী কালিয়াগঞ্জ ইউনিয়নের তেলিপাড়া  গ্রামে জাহের আলী ও আনারুল ইসলামের মধ্যে  ১ বিঘা জমি নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় আহত অবস্থায় জাহের আলী পক্ষের পাঁচজন পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়। আহতরা হলেন জাহের আলীর মা হাওয়া বেগম (৫৫) তার তিন  ছেলে মো. আসিফ (১৫), মো. শাকিল (১১), মো. আকাশ (১৭), তার মেয়ে পারভিন (১৯)। ঘটনা সূত্রে জানা যায়, ওই জমি নিয়ে জাহের আলী ও আনারুলের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে মামলা চলে আসছিল। জমিটি জাহের আলীর দখলে থাকায় সে ওই জমিতে তিল চাষ করেন। আনারুল শনিবার হঠাৎ সেখানে ২৫/৩০ জন লোক সহ লাঠিসোটা নিয়ে বাদাম চাষ করতে আসেন। সেখানে জাহের আলীর ছেলেরা বাঁধা দিতে গেলে সংঘর্ষ বাধেঁ। এতে জাহের আলীর পক্ষের ৫ জন আহত হয়।

পঞ্চগড় সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ জামাল হোসেন ও বোদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু সাঈদ চৌধুরী জানান, জমি নিয়ে তিনটি সংঘর্ষের ঘটনা আমরা জানতে পেরেছি। খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। তবে এখন পর্যন্ত কোন পক্ষের অভিযোগ পাওয়া যায়নি কিংবা মামলা দায়ের করেনি। তবে যথাযথ অভিযোগ পেলে আমরা পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নিবো।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য