সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী সাবেক কাউন্সিলর সুলতান খান ঢেনু’র ইন্তেকাল


মিজানুর রহমান মিলন সৈয়দপুরঃ 
 

সবাইকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও ঢেনু ভাই হিসেবে পরিচিত জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব সৈয়দপুর পৌরসভার সাবেক পৌর কাউন্সিলর  সুলতান খান ঢেনু (৬৭)। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি (ইন্নালিল্লাহে---রাজিউন)।   

তিনি আগামি ১৬ জানুয়ারি সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচনে ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদপ্রার্থী ছিলেন। মৃত্যুকালে  তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে এক মেয়ে, নাতি-নাতনি অসংখ্য আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব ও গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।

আজ শনিবার বাদ নামাজে জোহর মরহুমের জানাযার নামাজ শহরের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়।    পরে তাঁকে হাতিখানা কবরস্থানে দাফন করা হয়। তাঁর জানাজার নামাজ ও দাফনে ব্যবসায়ী বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ  ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেনী পেশার বিপুল সংখ্যক মানুষ অংশ নেন। 

সদা হাস্যজ্বল জনপ্রিয় ব্যক্তি সুলতান খান ঢেনুর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী, সৈয়দপুর উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মোখছেদুল মোমিন,ভাইস চেয়ারম্যান মো. আজমল হোসেন, নারী ভাইস চেয়ারম্যান সানজিদা বেগম লাকী,  উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মহসিনুল হক মহসিন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবু, নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি ও সিনিয়র আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যাপক মো. সাখাওয়াৎ হোসেন খোকন, আওয়ামী লীগ নেতা প্রকৌশলী একেএম রাশেদুজ্জামান রাশেদ, সৈয়দপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি আমিনুল হক, সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন লুতু, সাপ্তাহিক আলাপনের নির্বাহী সম্পাদক কাজী জাহিদ, সাপ্তাহিক জনসমস্যা সম্পাদক প্রভাষক শওকত হায়ত শাহ, 

সাপ্তাহিক সাফ জবাবের নির্বাহী সম্পাদক নজরুল ইসলাম, ব্যবসায়ী নেতা হাজী আফতাব আলম জুবায়ের, আলহাজ মমতাজ মিন্টু, সৈয়দপুর পাইকারি কাঁচাবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মিজানুর রহমান লিটন,সাধারন সম্পাদক তোফায়েল মোহাম্মদ আজম, ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের অধ্যক্ষ মো.শাবাহাত আলী সাব্বু, ১২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. খালিদ আজম ও নুর মোহাম্মদ ওয়ালিউর রহমান রতন  প্রমূখ। উল্লেখ্য মরহুম সুলতান খান ঢেনু সৈয়দপুর পৌরসভার ১২ নং ওয়ার্ডে ২ বার কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি পৌরসভার প্যানেল মেয়রও ছিলেন। এছাড়া ব্যবসায়ী ছাড়াও বিভিন্ন সমাজসেবা মুলক কাজেও অংশগ্রহণ ছিল তাঁর ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য