চালে আমদানির প্রভাব বাজাওে পঞ্চগড়ে চালে কমতি বাড়ছে সোয়াবিন তেলের দাম


মো. কামরুল ইসলাম কামু, পঞ্চগড়ঃ 

বাজার ব্যবস্থাপনা নিয়ে ক্রেতা-ভোক্তাদের মাঝে মতভেদ লেগেইে আছে। চালের দর কেনো বাড়বে ‘ সোয়াবিনের দাম কেনো বাড়ল’। এসব যেনো নিত্য দিনের চুলছেঁড়া বিশ্লেষন। প্রায় দুমাস ধরে সোয়াবিনের উর্দ্ধমুখি দর বেশ বেকায়দায় ফেলেছে। বোতলজাত সোয়াবিনের দরে এখন বিক্রি হচ্ছে খোলা সোয়াবিন। প্রতি লিটার খোলা সোয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১১০ টাকা থেকে ১১৫ টাকা। অথচ এই খোলা সোয়াবিন তেল ছিলো প্রতি লিটার ৮০ টাকা। বোতলজাত সোয়াবিন তেল ছিলো প্রতি লিটার ১০০ টাকা থেকে ১০৫ টাকা প্রতি লিটার। 

পঞ্চগড় শহরে এখন বোতলজাত সোয়াবিনের দাম হু হু করে বাড়ছে ‘ যার সঠিক কারন কেউ বলতে পারছেনা। শুক্ররবার বাজারে গিয়ে দেখা গেছে ‘ রুপচাঁদা’ তীর, বসুন্ধরা সহ সব ব্যান্ডের বোতলজাত সোয়াবিন দুই লিটার বোতল ২৪০ টাকা। গালামাল ব্যবসায়ি রবিউল জানান ‘ আরো দাম বাড়তে পারে।এদিকে চালের বাজারে গিয়ে দেখা যায় ‘ সব মানের চালের দাম কমতে শুরু করেছে। আমদানি করার কারনে বাজারে এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে।প্রতি ৫০ কেজির বস্তায় কমেছে ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা। মিনিকেট ৫০ কেজির বস্তায় ছিলো ৩ হাজার থেকে ২ হাজার ৯০০ টাকা। 

সেই মিনিকেট এখন বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার ৮৫০ টাকা থেকে ২ হাজার ৮০০ টাকা।গুটিপারি ছিলো ২ হাজার ৩৫০ টাকা । খেতে তা বিক্রি হচ্ছে ১হাজার ৯০০ টাকা। র্স্বণপারি ছিলো ২ হাজার ৩৫০ টাকা। সেই র্স্বণপারি বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার ১৫০ টাকা। আঠাইশ চাল ছিলো ২ হাজার ৭০০ টাকা থেকে ২হাজার ৮০০ টাকা। সেই চাল বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার ৬০০ টাকা থেকে ২ হাজার ৬৫০ টাকা। চাল ব্যবসায়ি বাচ্চু জানান ‘ আমদানির ফলে চালের দাম কমতে শুরু করেছে আরো কমে আসবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য