ডিমলায় পানি পানকরে এক পরিবারের সবাই অচেতন

জাহাঙ্গীর রেজা, স্টাফ রিপোর্টারঃ
সম্প্রতি নীলফামারী ডিমলা উপজেলা নাউতারা বাজার সংলগ্ন মৃত মামুনার রশিদের বাড়ির টিউবওয়েলে চেতনা নাশক ট্যাবলেট প্রয়োগ করে নগদ ৫০ হাজার টাকা, ১টি ল্যাপটব নিয়ে যাওয়ার রেস কাটতে না কাটতে গত ৮ সেপ্টেম্বর দুপুরে উপজেলার ৭নং খালিশা চাপানী ইউনিয়নের পূর্ব বাইশপুকুর গ্রামে রমনী মহন সেন এর বাড়ির রান্না ঘর সংলগ্ন টিউবওয়েলে চেতনা নাশক ট্যাবলেট প্রয়োগ করলে তা পান করে পরিবারের সবাই চেতনা হাড়িয়ে ফেলে। 

সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, উত্তর-পশ্চিম রান্না ঘর সংলগ্ন টিউবয়েলের পানি পান করে পরিবারটির সদস্য ও তাদের বাড়িতে বেড়াতে আসা আত্মীয়-স্বজন সহ ঐ দিন বাড়িতে চিকিৎসার জন্য পল্লি চিকিৎসক এবং তাঁর সঙ্গে থাকা ২ ব্যাক্তিও চেতনা হাড়িয়ে ফেলে। 

রমনী মহন সেন- এর মেজো ছেলে বিষ্ণুপথ সেন জানান, আমরা সকাল আনুমানিক ১০টার সময় বাড়িতে ধানকুঠা করার মেশিনের কাজে ব্যাস্ত ছিলাম, সেদিন বাড়িতে কয়েকজন আত্মীয় এবং চিকিৎসার জন্য ডাক্তার ও তাঁর সাথে দুজন ব্যাক্তিও এসেছিল। চিকিৎসা শেষে তাদের আপ্যায়ন করলে তারা চলে যায়। 

এর পর বাড়ির সদস্য রমনী মহন সেন, স্ত্রী শ্বরসতী রানী সেন, ছেলে বিষ্ণুপথ সেন, অর্চনা রানী সেন, অরপিতা রানী সেন দৃষ্টি, বকুল চন্দ্র সেন, সাথী রানী সেন ও তার দুগ্ধ পোস্য শিশু, রমনী মহন সেন এর নাতি রঞ্জন দাস গুপ্ত, আত্মীয় চয়ন সেন, তুম্পা সেন, তীর্থ সেন ও লাভলী সেন, বাড়িতে দাওয়াত খেতে আসা প্রতিবেশী রঞ্জনা রায়, চিকিৎসক ডাঃ তুষার চন্দ্র রায় ও তার সঙ্গী মিলন চন্দ্র সেন ও সুজন এক কথায় যেই পানি পান করেছে কোন রকমে বিছানা গিয়ে সবাই ঘুমিয়ে পড়েছে। 

অপর দিকে বাড়িতে কাজ করতে আসা প্রতিবেশি আমিনা বেওয়া চাউল ঝাড়ার কাজ করে এর পর পরে প্রতিবেশী মমিনা বাদাম ছেড়ার কাজ করে। হয়তো তাদের কারণেই দূস্কৃতি চক্ররা কোন ক্ষতি সাধন করতে সক্ষম হয়নি। এছাড়া তিনি আরো জানান এর আগেও তার বাড়িতে আগুন দেওয়া ও পুকুরের মাছ নিধন করেছে। যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ১০ লক্ষ টাকা।

কাজ করতে আসা মমিনা ও আমিনা বেওয়া জানান, কাজ শেষে তাদের এত ডাকাডাকি করি কেউ সাড়া দেয়না। কাছে গিয়ে গাঁ নাড়াচাড়া করলেও কেউ টের পায়নি। এর পর আমরা এলাকা বাসিকে বললে তারা ছুটে আসে। 

৯ সেপ্টেম্বর বিষয়টি ডিমলা থানা অফিসার ইনচার্য সিরাজুল ইসলাম সিরাজকে বিষয়টা অবগত করলে তিনি তাঁর প্রেরিত সাব ইন্সেপেক্টর উজ্জল শাহ্ সরজমিন পরিদর্শন করেন এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ও দূস্কৃতি চক্রকে গ্রেফতারে সকলের সহজোগীতা কামনা করেন ও এব্যাপারে সকলকে সজাগ থাকতে বলেন। 

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান সরকার ও এলাকার মান্যগণ্য ব্যাক্তিবর্গ। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য