কুড়িগ্রামে ধরলা নদীর পানি বিপদসীমার ৩৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত

মাসুদ রানা, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামের বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। ধরলার পানি সামান্য হ্রাস পেয়ে সেতু পয়েন্টে বিপদসীমার ৩৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ব্রহ্মপুত্র ও ধরলা অববাহিকার নীচু এলাকার ঘর-বাড়ি থেকে পানি নেমে না যাওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছে মানুষজন। পানির নীচে তলিয়ে থাকায় নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে এসব এলাকার আমন ও অন্যান্য ফসলের ক্ষেত। 

জেলার উলিপুর, কুড়িগ্রাম সদর, রৌমারী, রাজিবপুর রাজরহাট ও চিলমারী উপজেলায় ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা ও ধরলার ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারন করেছে। ঘর-বাড়ি হারিয়ে মানবেতর দিন পাড় করছে ভাঙ্গন কবলিত এলাকার মানুষজন।

সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য মইনুদ্দিন ভোলা জানান, নদীর তীব্র স্রোতে যাত্রাপুরের গারুহারা গ্রামে গত দুইদিন ধরে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত ১০টি বাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙ্গন অব্যাহত থাকলেও পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙ্গন ঠেকানোর কোন ব্যবস্থা নেয়নি। 

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: আরিফুল ইসলাম জানায়, উজানে ভারী বৃষ্টিপাতের ফলে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তবে পানি দীর্ঘস্থায়ী হবে না। ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তিস্তা ও দুধকুমার নদের ২০টিরও বেশি পয়েন্টে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। সাময়িক ভাবে ভাঙ্গন ঠেকানোর কাজ করা হচ্ছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য