মানবতার সেবক ডেইজি'র পক্ষ হতে আবারও কক্সবাজারে ২০০ পরিবারে খাবার বিতরণ

মোহাম্মদ হায়দার আলী, বিশেষ প্রতিনিধিঃ
করোনা সৃষ্ট বৈশ্বিক মহামারীর প্রাদূর্ভাবে ক্ষতিগ্রস্হ হয়েছে মানবসভ্যতার। দূর্বিষহ হয়ে পড়েছে মানুষের স্বাভাবিক জীবন। করোনা সংকটে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছে অসহায় জনগন।এদিকে দীর্ঘদিন লকডাউনে আটকে পডা বন্ধী জীবন দূর করতে সারাবিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশে লকডাউন তুলে ফেলা হলেও এখনও স্বাভাবিক হয়নি কোন কিছু। বর্তমানে যদি ও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অনেকে সরকারী, আদা- সরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে অনেকে চাকুরি ও হারিয়েছে করোনা সংকটে। ভাইরাস করোনার প্রাদুর্ভাবে কোন কোন ব্যবসায়ীদের বন্ধ করে দিতে হয়েছে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। 

ভাইরাস করোনার কারনে  বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ভিবিন্ন খাতে সীমাহীন ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে। এছাড়াও বাংলাদেশের পর্যটনখাত বন্ধ থাকার কারণে অসহায় জীবন পার করছে পর্যটন নির্ভর ব্যবসায়ীরা। তাদের মধ্যে সব চেয়ে বেশী ক্ষতি গ্রস্ত হয়েছে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে চা,ঝিনুক বিক্রেতা সহ অল্প পুঁজির ব্যবসায়ীরা। তাদের দূঃখ আর দেখে কে! এমন বক্তব্য সকল ভুক্তভোগীদের মুখে মুখে। টিক এই দূর্দিনে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় স্বল্প পুঁজির ব্যবসায়ী সহ হত দরিদ্রদের কে নানা ভাবে সহযোগিতা করে আসছেন, মানবতার ফেরিওয়ালা, অসহায়দের দূঃখের দিনের সাথী,মানবতার জননী,কুতুবদিয়ার অহংকার, কক্সবাজার মহিলা সমিতির কেন্দ্রীয় সভানেত্রী ও এ্যাকশন টুওয়ার্ড'স হিউমিনিটির চেয়ারম্যান ডেইজি ফাতিমা আনকিস।

তার সকল মানবিক সেবা ও সামাজিক উন্নয়নমুলক কর্মকান্ডের সচিত্র প্রতিবেদন ভিবিন্ন পত্র-পত্রিকার পাতায় শিরোনাম হয়ে আসছে অহরহ। তারই ধারাবাহিকতায় তিনি ২৪/৭/২০২০ইং রোজ শুক্রবার আজ দুপুর ৩টায় কক্সবাজারেরসমিতি পাড়াস্থ সৈকত পয়েন্টে করোনায় ক্ষতি গ্রস্হ দুইশত স্বল্প পুঁজির ব্যবসায়ী ও অসহায় পরিবারের মাঝে খাবার বিতরণ করেন। বিতরণ কালে এই মানবতার সেবক ডেইজি ফাতিমা আনকিস বলেন, "আমরা সব সময় চেষ্টা করি অসহায় মানুষের পাশে দাঁডাতে। করোনা ভাইরাসের কারণে সৈকতের ক্ষুদ্র এই ব্যবসায়ীদের ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাওয়াতে মানবেতর  জীবন যাপন করতে হচ্ছে তাদের। তাদের এমন কঠিন মুহূর্তে আমি চেষ্টা করছি পাশে দাঁড়াতে।সমাজের বিত্তবানদেরকে অনুরোধ করবো, আপনারাও যেন এই অসহায় মানুষ গুলোর পাশে দাঁড়ান।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য