কক্সবাজারে ‘গ্যাং লিডার’ আলমগীরের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার

আক্তার কামাল সোহেলঃ
কক্সবাজার শহরের পাহাড়তলী এলাকার আলোচিত বিডিআর ছৈয়দ হত্যাকাণ্ডের মূলহোতা ও ২০ মামলার আসামি মোহাম্মদ আলমগীরের (২৩) গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আলমগীর সন্ত্রাসী ও কিশোর ‘গ্যাং লিডার’ হিসেবে পরিচিত।

শুক্রবার (২২ মে) ভোরে কক্সবাজার শহরের ঝাউবাগানের কবিতা চত্বর থেকে ওই যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর থানা পুলিশ।

গত ১৮ এপ্রিল এই মোহাম্মদ আলমগীর, তার ভাই আলাউদ্দিনের নেতৃত্বে শহরের দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়ার চেয়ারম্যানের মায়ের ঘোনা এলাকায় আবু ছৈয়দ ওরফে বিডিআর ছৈয়দকে (৬৫) জবাই করে হত্যা করা হয়েছিল। এই ছৈয়দ পারিবারিক সম্পর্কে নিজের বোনের শ্বশুর ছিলেন।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি ছৈয়দ শাহজাহান কবির জানান, শুক্রবার ভোররাতে শহরের ঝাউবাগানের কবিতা চত্বরে এক যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ পড়ে থাকতে দেখে লোকজন পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে নিয়ে যায়।

ওসি জানান, মর্গে নিয়ে যাওয়ার পর অনেকেই ওই যুবককে কক্সবাজার শহরের দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়ার এবিসি ঘোনার চেয়ারম্যান ঘাটা এলাকার মোহাম্মদ ফরিদ ওরফে দারোয়ান ফরিদের ছেলে মোহাম্মদ আলমগীরের লাশ হিসেবে শনাক্ত করেন।
ওসি শাহজাহান কবিরের মতে, সন্ত্রাসী ও গ্যাং লিডার এই আলমগীরকে পুলিশ অনেকদিন ধরে খুঁজছে। তার বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর থানায় হত্যা, ছিনতাই, ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপরাধে অন্তত ২০টি মামলা রয়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য