সৈয়দপুরে আরও দুইজনের করোনা ভাইরাস শনাক্ত এনজিও শার্প’র প্রধান কার্যালয় লকডাউন


মিজানুর রহমান মিলন স্টাফ রিপোর্টারঃ নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলায়  নতুন করে আরও দুই জনের শরীরে করোনা ভাইরাস পজিটিভ   শনাক্ত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার রাতে তাদের নমুনা  পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ ফলাফল এসেছে। নতুন শনাক্ত দুজন হলেন ইসলামী ব্যাংক সৈয়দপুর শাখায় কর্মরত এবং অপরজন সৈয়দপুরের স্থানীয় বেসরকারি সংংস্থা শার্প কর্মকর্তা। নিয়ে সৈয়দপুর উপজেলায় ১০ জন করোনা ভাইরাস পজিটিভ শনাক্ত হলো। এর আগে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড সৈয়দপুর শাখার ব্যবস্থাপক কর্মকর্তাসহ তাদের পরিবারের আরো বেশ কয়েকজন করোনা শনাক্ত হয়েছে। তবে তাদের নীলফামারী, রংপুর বগুড়া থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। বর্তমানে তারা তাদের নিজ আবাসস্থল এলাকার হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ড হোম আইসোলেশনে রয়েছে। সৈয়দপুর উপজেলা প্রশাসন উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, গত ১০ মে  ইসলামী ব্যাংক সৈয়দপুর শাখার এক কর্মকর্তা এনজিও শার্প' অপর এক কর্মকর্তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এরপর নীলফামারী সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের মাধ্যমে তাদের নমুনা দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল। পরীক্ষায় গতকাল শুক্রবার রাতে তাদের করোনা পজিটিভ ফলাফল এসেছে।  এরপরেই করোনা আক্রান্ত  ইসলামী ব্যাংক শার্প কর্মকর্তাকে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে রাতেই উপজেলা প্রশাসন স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা করোনা আক্রান্ত ব্যাংক কর্মকর্তার শহরের কাজীপাড়াস্থ বাড়ি এবং এনজিও কর্মকর্তার কয়ানিজপাড়াস্থ ভাড়া বাড়ি লকডাউন করেন। সেই সঙ্গে শহরের শহীদ তুলশীরাম সড়কে অবস্থিত বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা সেলফ-
-হেলপ্ এন্ড রিহেবিলিটেশন প্রোগ্রাম(শার্প)' প্রধান কার্যালয়ও লকডাউন করেন।  এর আগে গত ২৮ এপ্রিল থেকে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড সৈয়দপুর শাখা কার্যালয়টি লকডাউন রয়েছে।
সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, করোনা ভাইরাসের শুরু  থেকে গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত সৈয়দপুর উপজেলায় মোট ১০ জন ব্যক্তির করোনা শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে জন সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। আর সৈয়দপুর উপজেলায় প্রথম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত খাতামধুপুর ইউনিয়নের খালিশা বেলপুকুর বকসিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা হাফিজুল ইসলাম বিটুল (৩৬) সুস্থ হয়ে গত ২৯ এপ্রিল বাড়ি ফিরে গেছেন। অপর আক্রান্ত তিনজনের মধ্যে দুইজন সৈয়দপুরে এবং একজন হোম আইসোলেশন রয়েছেন।  অপরিদকে গতকাল শুক্রবার সৈয়দপুর উপজেলায় সর্বমোট ১২১ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। আর হোম কোয়ারিন্টাইনে রয়েছে ১৮৬ জন। সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু মো. আলেমুল বাসার উল্লিখিত তথ্যগুলোর বিষয়ে সত্যতা নিশ্চিত করেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য