গতবছরে জেলায় হত্যার সংখ্যা ৪০

মোহাম্মদ শরিফ,নাটোর :
নাটোরের সাত উপজেলায় প্রায় প্রতি মাসেই নানা কারণে হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। আর বেশীরভাগ হত্যাকান্ড গুলো সংগঠিত হয় প্রকাশ্যেই। পুলিশের হিসেব অনুযায়ী, বিদায়ী গতবছরে জেলায় হত্যাকান্ডের ঘটনায় মামলা হয়েছে ৪০টি। সহনশীলতা চর্চার মাধ্যমে হত্যাকান্ডের মতো অপরাধমূলক প্রবনতা কমিয়ে আনা সম্ভব বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।
নিহতের স্বজনরা জানান, ছেলেকে হারিয়ে মায়ের বুকফাটা আর্তনাদ। গতবছর  ফেব্রুয়ারি মাসে শহরের দত্তপাড়া বাজারে কুপিয়ে হত্যা করা হয় হাসান আলীকে। হত্যাকান্ডে জড়িতরা আইনের আওতায় না আসায় হতাশ প্রিয়জন হারানোর ব্যথায় জর্জরিত স্বজনরাও।
সহনশীলতার চর্চার মাধ্যমে হত্যাকান্ডের মতো অপরাধমূলক প্রবনতা কমিয়ে আনা সম্ভব বলছেন
নাটোর জজকোটের আইনজীবী এ্যাড. ভাস্কর বাগচী। 
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় মৃৎশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগ, চারুকলা অনুষদের সহযোগি অধ্যাপক ড. একেএম আরিফুল ইসলাম আরিফ বলছেন হত্যা কান্ড রোধ করা শুধু পুলিশের কাজ নয়, আমাদের সকলকেই এগিয়ে আসতে হবে। আমাদের মনুষত্ববোধকে জাগ্রত করতে হবে তাহলেই সোনার বাংলা গড়া সম্ভব।
পাবনা মানসিক হাসপাতালের কনসালটেন্ট (সাইকিয়াট্রি) ডাঃ মাসুদ রানা সরকার  বলেন হত্যা কান্ড শুধু মানষিক সমস্যা তা নয়। এখানে সামাজিক মূল্য বোধ , প্রশাসনিক ব্যার্থতা, পারিবারিক সমস্যা ও মাদক থাকতে পারে। এ থেকে বেড়িয়ে আসতে হলে শিক্ষক, প্রশাসন, ঈমান, পুলিশসহ সকলের প্রচেষ্টায় এ ধরনের অপরাধ থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব।
পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বলছেন, হত্যাকান্ড রোধে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। যার কারণে ক্রমান্নয়ে হত্যার ঘটনা কমে যাচ্ছে ।
জেলায় ২০১৭ সালে ৪২টি এবং ২০১৮ সালে ৫২টি হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে কার্যকরি পদক্ষেপ ও সামাজিক সচেতনতা বাড়াতে কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহন করলে হত্যাকান্ডের পরিমান আরও কমে আসবে বলে মনে করেন সচেতন মহল
 ২০১৯ সাল   হত্যা মামলার পরিসংখ্যান
০১। নাটোর সদর থানা     ০৬
০২। সিংড়া থানা    ০৯
০৩। নলডাঙ্গা থানা   ০৩
০৪। বড়াইগ্রাম থানা  ০৮
০৫। বাগাতিপাড়া থানা ০১
০৬। লালপুর থানা   ০৬
০৭।গুরুদাসপুর থানা  ০৭
মোট  ৪০ টি


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য