জলঢাকায় কাপড় ব্যবসায়ীকে বর্বরোচিত হামলায় গ্রেফতার-০৩


আব্দুল মালেক, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

গত ২৫ ডিসেম্বর ভোর পনে পাঁচটায় নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলায় পোশাক ব্যবসায়ী শাহ মোঃ আরিফ চৌধুরীকে হত্যার উদ্দেশ্যে বর্বরোচিত হামলার ঘটনা ঘটে। গোপন সংবাদেও ভিত্তিতে পুলিশ সুপারের নিদের্শনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এ.এস.এম মোক্তারুজ্জামান এর নেতৃত্বে জলঢাকা থানা অফিসার ইনচার্জ ও পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) এবং তদন্তকারী কর্মকর্তাদের নিয়ে একটি টিম শনিবার রাতে অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, উপজেলার বালাগ্রাম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক ও মন্তেরডাঙ্গা এলাকার আতিয়ার রহমান প্রামানিকের ছেলে রেজওয়ান প্রামানিক (২০), উপজেলা পৌর এলাকার মাথাভাঙ্গা গ্রামের যুবলীগ নেতা মানিকুজ্জামান মানিকের ছেলে নাহিদ হাসান মিঠু (১৯) ও মুদিপাড়ার দীনোবন্ধু রায়ের ছেলে শ্রী বিশাল চন্দ্র রায় (২২)। 

এঘটনায় (০৩ জানুয়ারী) সন্ধায় পুলিশ সুপারের কনফারেন্স রুমে এক প্রেস ব্রিফিং করেছেন জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান, পিপিএম, বিপিএম । প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার বলেন, প্রতিদিনের ন্যায় জলঢাকার এসিল্যান্ট জামে মসজিদে গত ২৫ ডিসেম্বর ফজরের নামাজ আদায় শেষে বাড়ি ফেরার পথে এলোপাথারী ভাবে মাথায় ছুরিকাঘাত করে দুর্বৃক্তরা। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে জলঢাকা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে আজ সকালে এ্যায়ার অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকায় নিয়ে যায় স্বজনরা।

পুলিশ সুপার জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল এর নেতৃত্বে জলঢাকা থানা পুলিশের একটি টিম অভিযান চালিয়ে প্রথমে পৌরসভা অফিসের পিছনের বাড়ি থেকে নাহিদ হাসান মিঠুকে গ্রেফতার করেন। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী মুদিপাড়ার বিশাল চন্দ্র রায়কে গ্রেফতার করে। তিনি জানান, থানায় দুইজনের স্বীকারোক্তিতে আরিফ চৌধুরীকে হত্যার উদ্দেশ্যে ছোরা, চাইনিজ কুড়াল ও চাপাতি দিয়ে কোপানো হয়েছে, সেই অস্ত্রগুলো তাদের টিম লিডার রেজোয়ানের কাছে জমা আছে। 

পুলিশ সুপার বলেন, তাদেরকে নিয়ে বালাগ্রাম মন্তেরডাঙ্গা এলাকার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়। রেজওয়ানের তথ্য অনুযায়ী ০১টি স্টেইনলেস স্টিল হাতল বিশিষ্ঠ কুড়াল, -১টি লম্বা ছোরা, ০১টি চাপাতি ও ০১টি চাইনিজ চাপাতি, ওই এলাকার মৃত. নছর উদ্দিনের ছেলে নজু ইসলামের মরিচ ক্ষেতের ড্রেন থেকে উদ্ধার করা হয়। এছাড়াও নাহিদ হাসান মিঠুর বিরুদ্ধে মটরসাইকেল চুরির মামলা আছে বলে তিনি জানান।

পুলিশ সুপার আরো জানান, তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনেও মামলা হয়েছে। আসামীদের বিজ্ঞ আদালতে নিয়ে রিমান্ডের আবেদন করা হবে বলে তিনি জানান।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য