নীলফামারী ডিমলার অসহায় আতোয়ারা বেগম বাঁচতে চায়


বিশেষ প্রতিনিধিঃ
 

নীলফামারী ডিমলা উপজেলার ৮নং ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের দক্ষিন সোনাখুলী গ্রামের বাসিন্দা রেয়াজ উদ্দীনের স্ত্রী আতোয়ারা বেগম(৩২) তিন সন্তানের জননী। তিনি দীর্ঘ ০৮ মাস যাবত হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে অস্বাভাবিক ভাবে জীবন-যাপন করছেন। স্বামীর অভাবী সংসারে অপ্রাপ্ত তিন শিশু সন্তানকে নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন তিনি। অভাবী সংসারে একমাত্র উপার্জনকারী সম্বল স্বামীর একটি মাত্র ভ্যান গাড়ী। আর এই ভ্যান চালিয়ে কোন রকম জীবিকা নির্বাহ করেন তারা। এর উপর আবার স্ত্রী অসুস্থ্য, স্ত্রী ও তিন সন্তানকে নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন রেয়াজ উদ্দিন।  

স্ত্রীর হার্ডের বাল্পের সমস্যা হওয়ায় বাড়ির আসবাব পত্র বিক্রি করে দীর্ঘ ৮ মাস ধরে চিকিৎসা চালিয়ে আসছেন বলে জানান রেয়াজ উদ্দিন। এছাড়াও ডাক্তার বলেছেন, হার্ট সার্জারী করলে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারবেন তিনি। বর্তমানে তার একটি ভ্যান গাড়ী ছাড়া আর কোন অবলম্বন নেই। চরম মানবেতর জীবন যাপন করছে এই পরিবারটি। অসুস্থ্য আতোয়ারা বেগম বলেন, আমার জন্য না হলেও সন্তানদের মুখের দিকে তাকিয়ে আমি বাঁচতে চাই। বর্তমানে সে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হৃদরোগ ও মেডিসিন বিশেষঞ্জ ডাঃ মোঃ হাসানুল ইসলাম, এর পরামর্শ ক্রমে বাড়িতে চিকিৎসাধীন আছেন। রোগীর স্বজনরা বলছেন, অপারেশন হলেই বেঁচে যাবে, অপারেশনের জন্য প্রায় ৫ থেকে ৬ লক্ষ টাকার প্রয়োজন। 

সয়-সম্বলহীন এই পরিবারের পক্ষে এত টাকা যোগান দেয়া সম্ভব নয় তাই সরকারী বেসরকারী সমাজের সহৃদয়বান সেবানকারী প্রতিষ্ঠান ও সেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলোর প্রতি সাহায্যের জন্য আকুতি জানিয়েছেন এই পরিবারের সদস্যরা। সরাসরি যোগাযোগের ঠিকানা ০১৭৯৭৬০৮৭০৮, এছাড়াও ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড জলঢাকা ব্রাঞ্চ এর যার একাউন্ট নং- ৯৬৬২ ও নিজেস্ব বিকাশ নং-০১৭৯৮৯৬৫৩০৩।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য