ডাকাতদলের দুই সদস্য গ্রেফতার

মিজানুর রহমান মিলন স্টাফ রিপোর্টারঃ
পুলিশী তৎপরতায় সৈয়দপুরে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের দুই সদস্যকে গ্রেফতার হয়েছে। 

এসময় পিকআপসহ  ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন মালামাল উদ্ধার করা হয়েছে। আজ বুধবার ভোররাতে উপজেলার সৈয়দপুর-রংপুর মহাসড়কের  কামারপুরকুর এলাকার পতিরাম ব্রীজের সামনে থেকে ওই ডাকাতদলের সদস্যদের গ্রেফতার করা হয়। 

এ ঘটনায় সৈয়দপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে। পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদে তারা জানতে পারেন  ডাকাতির উদ্দেশ্যে  আন্তঃজেলা ডাকাত দলের একটি গ্রুপ সৈয়দপুরে অবস্থান করছে। তারা সৈয়দপুরে কোন অঘটন ঘটাতে পারে। 

মঙ্গলবার গভীর রাতে এমন সংবাদ পেয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবুল হাসনাত খান সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান রেজাউল করিম লোকমান ও বাঙ্গালীপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান প্রনোবেশ চন্দ্র বাগচিকে গ্রাম পুলিশসহ তাদেরকেও সতর্ক থেকে তাদের এলাকায় নজরদারি করার নির্দেশ দেন। 

এরই মধ্যে পুলিশের দুটি দল কামারপুকুর ও বাঙ্গালীপুর ইউনিয়ন এলাকায় পৌছে যায়। সৈয়দপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অশোক কুমার পালের নির্দেশনায় থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক সাহিদুর রহমান,ইন্দ্র মোহন, সহকারি উপ-পরিদর্শক নুর আমিন ও পলাশসহ দলটি ওইসব এলাকায় অবস্থান নেয়। 

গভীর রাতে কামারপুকুরে অবস্থান নেয়া পুলিশের দলটি পতিরাম ব্রীজ এলাকায় দেখতে পায় সেখানে একটি হলুদ রংয়ের পিকআপসহ ৬ /৭ জনের একটি দল অবস্থান করছে। 

এসময় তাদের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হলে উপ- পরিদর্শক সাহিদুর রহমান ও সহকারি উপ- পরিদর্শক নুর আমিনসহ সঙ্গীয় ফোর্স ওই এলাকা ঘিরে ফেলে। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাত দলের সদস্যরা পিকআপ রেখে পালিয়ে যাওয়ার চেস্টা করে। 

পরে পুলিশের ধাওয়ায় ডাকাত দলের দুই সদস্য গ্রেফতার হলেও অন্যরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ডাকাতির কাজে ব্যবহার করা একটি পিকআপ (নং-ঢাকা মেট্রো-ট-
-১৭-৬৭১০) আটক করে। 

পুলিশের হাতে গ্রেফতারকৃতরা হলো নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার দক্ষিন বড় রাউতা এলাকার শাহারুদ্দিন পাড়ার বছির উদ্দিনের পুত্র আন্তঃজেলা ডাকাতদলের সক্রিয় সদস্য মিজানুর রহমান মিজান(৪২) ও গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর উপজেলার পিরোজালী বকসা পাড়ার মনসুর হোসেনের পুত্র পিকআপ চালক মাসুম ওরফে মাসুদ(২৫)। 

এসময় ওই পিকআপ থেকে ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত হাইড্রলিক কেচি,হাতুরী,লাঠিসহ অন্যান্য মালামাল উদ্ধার করা হয়। 

এ ব্যাপারে সৈয়দপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে। 

জানতে চাইলে সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো.  আবুল হাসনাত খান বলেন গ্রেফতারকৃতরা আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য। তাদের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন  থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। 

তিনি বলেন এ ঘটনায় গ্রেফতার দুজনসহ ৬/৭ জনের নামে থানায় মামলা হয়েছে। তবে তদন্তের স্বার্থে অন্য আসামিদের নাম প্রকাশ না করে তিনি জানান খুব শিগগির তাদেরও গ্রেফতার করা হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য