সৈয়দপুরে পিতা-পুত্রসহ অন্য ভাইয়ের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা, প্রতিবাদে এলাকাবাসীর বিক্ষোভ ও মানববন্ধন

মিজানুর রহমান মিলন, স্টাফ রিপোর্টারঃ 
নীলফামারীর সৈয়দপুরে ঘটনার পাঁচ মাস পর ধর্ষণ মামলা করা হয়েছে। মামলায় আসামী করা হয়েছে পিতা-পুত্র,চাচাসহ অন্য ভাইদের। গত ৮ জুলাই সৈয়দপুর থানায় দায়েরকৃত এ মামলাকে সাজানো মামলা দাবি করে এলাকাবাসী শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে। 

শনিবার সন্ধ্যায় শহরের মিস্ত্রিপাড়া এলাকার দুই শতাধিক নারী-পুরুষের বিক্ষোভ মিছিল শেষে সৈয়দপুর প্রেসক্লাব চত্বরে মানববন্ধন করে। মানববন্ধন চলাকালে ধর্ষণ মামলাটি মিথ্যে কাহিনীতে সাজানো ও স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে করা হয়েছে দাবি করে বক্তব্য বলেন বিশিষ্ট চামড়া ব্যবসায়ী আলহাজ্ব শওকত আলী, মো. রুবেল, মো.ফরিদ আশরাফী ও নারী নেত্রী রুবিনা পারভীন। 

বক্তারা তাদের বক্তব্যে মামলার নিরপেক্ষ তদন্ত ও যোগসাজসি মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বলেন কোটি টাকার সম্পদ হাতিয়ে নিতে প্রতিপক্ষ আপন চাচা নাসিম চার বছরের শিশুকে ধর্ষণ করা হয়েছে বানোয়াট অভিযোগে মামলা সাজিয়ে কৃতি ক্রিকেটার জুনায়েদ ফয়সালকে (২৪) জেলে পাঠানো হয়েছে। 

মামলায় আসামী করা হয়েছে জুনায়েদ ফয়সালের পিতা শামীম (৫৮), চাচা এজাজ আহমেদ আরমান (৩৫), মো.খালিদ (৪৫) ও চাচাতো ভাই সালেহীনকে (২২)। বক্তারা তাদের অভিযোগে বলেন সাড়ে চার বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয় শহরের মিস্ত্রীপাড়া এলাকার অধিবাসী ব্যবসায়ী শামিম আহমেদের ছেলে জুনায়েদ ফয়সালের বিরুদ্ধে।  

মামলায় ঘটনার তারিখ উল্লেখ করা হয়েছে চলতি বছরের ৭ ফেব্রুয়ারী। অথচ মামলা দায়ের করা হয়েছে গত ৮ জুলাই। তারা বলেন দীর্ঘ পাঁচ মাস পর মামলায় নিরীহ জুনায়েদকে আসামি করে প্রতিপক্ষ আপন চাচা ক্ষান্ত হয়নি। 

ওই ধর্ষণ মামলার আসামী করা হয়েছে পিতা,চাচা ও চাচাতো ভাইকে। বক্তারা আরও অভিযোগ করে বলেন, পারিবারিক সম্পদের ভাগবাটোয়ারার বিরোধকে ঘিরে কোটি টাকার সম্পদ হাতিয়ে নিতেই ওই সাজানো মামলা থানায় করা হয়েছে। 

ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা হলো অথচ পাঁচমাস গত হওয়ার পরও ধর্ষণের বিষয়টি প্রতিবেশীসহ গোটা সৈয়দপুরবাসী জানতো। অথচ কেউ বিষয়টি জানলো না! মানববন্ধনে অংশ নেয়া অসংখ্যক মানুষজন ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়া কৃতি ক্রিকেটার জুনায়েদ ফয়সালকে স্বীকারোক্তি আদায়ের নামে পুলিশের নির্যাতনের তীব্র প্রতিবাদ জানান। 

অবিলম্বে নিরপেক্ষ তদন্ত করে ওই যোগাসাজসি মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান এলাকাবাসী। যদি তা করা না হয় তাহলে রাজপথে আন্দোলন করেই সত্য প্রতিষ্ঠা করা হবে বলে মানববন্ধন থেকে বক্তারা হুশিয়ারী উচ্চারণ করেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য