কালীগঞ্জে আইনের তোয়াক্কা না করে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন

হাসানুজ্জামান হাসান, লালমনিরহাটঃ
বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী নির্দিষ্ট নদীর বালুমহাল ছাড়া অন্য কোনও নদী, স্থান বা মাটির তলদেশ থেকে ড্রেজার মেশিন অথবা অন্য কোনও উপায়ে বালু উত্তোলন করা যাবে না। 

কিন্তু এই আইনকে বৃদ্ধাঙ্গলি দেখিয়ে ফসলি জমি থেকে ড্রেজার  দিয়ে বালু উত্তোলন করছে। 

ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের অপরাধে প্রায় সাজা দেয়া হলেও  থেমে নেই ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন।

বুধবার (২৪ জুন) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কালীগঞ্জ উপজেলার হাড়িশ্বর আদর্শ দাখিল মাদরাসা সংলগ্ন চলবলা মদনপুর গ্রামে ফসলি জমিতে ড্রেজার বসিয়ে মাটির গভীর থেকে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে।

ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের বিষয়ে ড্রেজার মেশিন মালিক শুকান দিঘী এলাকার মজিবরের পুত্র সালাম মিয়া জানান, অনুমতি আছে কিনা জানা নেই। মাদ্রাসা কমিটি উত্তোলন করতে বলছে উত্তোলন করতেছি। ড্রেজার দ্বারা বালু উত্তোলন অবৈধ কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, জানি বৈধ নয় ।

বালু উত্তোলন কারী উক্ত এলাকার জরি মোহাম্মদের পুত্র হাফেজ আলী জানান, কমিটির লোক সহ কথা বলেন, আমি এ বিষয় কিছু জানিনা। মাদ্রাসা কমিটির লোক আমাকে উত্তোলন করতে বলছে। 


বালু উত্তোলনের বিষয় হাড়িশ্বর আদর্শ দাখিল মাদরাসার সভাপতি পরিচয়ে আবুল বাশার নামে এক ব্যক্তি বলেন,আমরা মাদরাসা কমিটি একটি রেজুলেশন তৈরি করে বালু উত্তোলন করছি। আমাদের বালু উত্তোলনে ডিসি ইউএনওর কোন অনুমতি লাগে না। 

কারন আমরা আমাদের মাদরাসার জমি থেকে বালু উত্তোলন করছি। এভাবে বালু উত্তোলন বৈধ নাকি অবৈধ এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,কোনটা বৈধ আর কোনটা অবৈধ সেটা আমার ভাল জানা আছে বলে ঘটনাস্থল হইতে চলে যান।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য