করোনার প্রভাবে উপার্জন না থাকায় সাংসারিক অভাবে যুবকের আত্মহত্যা

নাটোর প্রতিনিধিঃ
করোনার প্রভাবে উপার্জন না থাকায় সাংসারের অভাব মেটাতে না পারায় জুয়েল রানা নামে এক আত্নহত্যা করেছে। পরে যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশআজ শনিবার ২০ জুন সকালে ঘরের ভেতরে গলায় গামছা পেছিয়ে আত্মহত্যা করে সে
ঘটনাটি ঘটেছে নাটোরের বড়াইগ্রামের নওদা জোয়ারী গ্রামে
এলাকাবাসী স্থানীয় ইউপি সদস্য জমসেদ আলী জানান, মৃত্যু জুয়েল ওই গ্রামের দুলাল ওরফে ভোলার ছেলে। করোনার সংকটকালীন সময়ে আয় রোজগার কমে যাওয়ায় সংসারের অভাব মেটাতে না পেরে মানসিক সমস্যায় ভুগছিলেন জুয়েল। বাড়ির লোকজন আজ শনিবার সকালে ঘরের ভেতর গলায় ফাঁস দিয়ে  তাকে ঘরে ঝুলতে দেখে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়
ব্যাপারে বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দিলীপ কুমার দাস সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বড়াইগ্রামের নওদা জোয়ারী গ্রামে জুয়েল নামে এক যুবক গলায় গামছা পেঁচিয়ে আত্নহত্যা করেছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন, সাংসারিক অভাবের কারণে মানসিক চাপে এই আত্নহত্যা হতে পারে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পর সঠিক কারণ যানা যাবে


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য