কুড়িগ্রামে অসহায় বিধবা মহিলা ও তার সন্তানকে অবরুদ্ধ করে সন্ত্রাসীদের হুমকী



মো: মাসুদ রানা, কুড়িগ্রামঃ কুড়িগ্রামের পৌরসভার বকসী পাড়া এলাকায় একটি বিধবা পরিবারকে রাস্তা বন্ধ করে অবরুদ্ধ করে রেখেছে প্রতিবেশি সন্ত্রাসীরা। ঐ পরিবারটির বাড়ি থেকে বেড়ানোর রাস্তায় দোকান ঘর তুলে যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে। এ অবস্থায় স্বামী হারা বাড়ির মালিক পরিবার পরিকল্পণা পরিদর্শক মোছা: আলেমা খাতুন বাড়ির ভিতর কলেজ পড়ুয়া একমাত্র ছেলেসহ অবরুদ্ধ জীবন যাপন করছে। ঘটনাটি ঘটেছে রোববার দুপুরে। প্রতিবেশি সন্ত্রাসী জাহিদ বকসী ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা মিলে একটি টিনের দোকান ঘর এনে ঐ মহিলার বাড়ির রাস্তায় বসিয়ে রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে। এ ঘটনার বাড়ির মালিক আলেমা খাতুন থানা পুলিশের সহযোগীতা চেয়েও কোন প্রতিকার পাননি। ঘটনার পর বিকেল ৫ টার দিকে সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে জাহিদ বকসীকে রাস্তা থেকে দোকান ঘর সড়ানোর কথা বলে আসলেও তারা দোকান ঘরটি সরাননি। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঐ বিধবা মহিলা অবরুদ্ধ জীবন যাপন করছে।বি ধবা আলেমা বেগম জানান, বিয়ের পর থেকে আমি স্বামী সন্তান নিয়ে শশুরের জমিতে বাড়ি করে বসবাস করে আসছি। ২০১৯ সালের আগষ্টে আমার স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে প্রতিবেশি সন্ত্রাসী জাহিদ বকসী তার ক্যাডার বাহিনী নিয়ে আমাকে বাড়ি ছাড়া করার জন্য হুমকী দিয়ে আসছে। এরমধ্যে এ বছরের গত ২৯ এপ্রিল বাড়ির প্রবেশ পথে টিনের বেঁড়া ও বালু ফেলে চলাচল বন্ধ করে দেয়। পরে রাস্তা বন্ধের বিষয়টি নিয়ে কুড়িগ্রাম সদর থানায় লিখিত অভিযোগ করলে পুলিশ এসে টিনের বেড়া ও বালু সরিয়ে দেয়। কিন্তু এরপর থেকেও হুমকী অব্যাহত রাখার পর রোববার (৭ জুন’২০২০) দুপুরের দিকে আমার চলাচলের রাস্তায় টিনের দোকান ঘর বসিয়ে রাস্তা পুরোপুরি বন্ধ করে দিয়েছে। এ অবস্থায় আমি বাড়ির ভিতর অবরুদ্ধ থেকে একমাত্র ছেলেকে নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমি এ ঘটনার সাথে জড়িতদের বিচার চাই।
ঐ মহিলার প্রতিবেশি চাঁদ বকসী জানান, জাহিদ বকসী এলাকায় একটি সন্ত্রাসী বাহিনী গঠন করে দীর্ঘদিন ধরে চাঁদাবাজি, জমি দখল, মাদকসহ নানা অপকর্ম করে আসছে। তার এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর আবেদন করলেও তার সন্ত্রাসী কর্মকান্ড অব্যাহত রয়েছে। এর আগেও একবার ঐ বিধবা মহিলার বাড়ির চলাচলের রাস্তায় টিনের বেড়া দিয়েছিল। সদর থানা পুলিশ এসে তা সরিয়ে দিলেও রোববার আবারও ঐ মহিলার চলাচলের রাস্তা টিনের দোকান ঘর বসিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে। এলাকাবাসী এই জাহিদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে অতিষ্ঠ হয়ে উঠছে। সর্বশেষ রোববার এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে সে তার প্রতিবেশি মহিলাদেরকেও লাি ত করে। এ ব্যাপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মাহফুজার রহমান বলেন, আমি দু’পক্ষকে ডেকে থানায় বসে বিষয়টি সমাধান করা কথা বলেছি। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য