সার্বক্ষণিক কাদেরের খোঁজখবর রাখছেন প্রধানমন্ত্রী

সার্বক্ষণিক কাদেরের খোঁজখবর রাখছেন প্রধানমন্ত্রী

অসুস্থ হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি হওয়া আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ব্যাপারে সার্বক্ষণিক খোঁজখবর রাখছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ তথ্য জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া। তিনি আজ শুক্রবার বেলা একটার দিকে বিএসএমএমইউ থেকে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে এসব কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি
 ডেস্ক নিউজঃ
অসুস্থ হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি হওয়া আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ব্যাপারে সার্বক্ষণিক খোঁজখবর রাখছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ তথ্য জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া। তিনি আজ শুক্রবার বেলা একটার দিকে বিএসএমএমইউ থেকে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে এসব কথা বলেন। 

সকাল সাড়ে ১০টায় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁকে বিএসএমএমইউতে নেওয়া হয়। তাঁকে কার্ডিওলজি বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে বলে সকালে প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেন বিএসএমএমইউর উপাচার্য কনক কান্তি বড়ুয়া। দুপুর ১২টার দিকে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল। তাঁকে পর্যবেক্ষণের জন্য করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) রাখা হয়েছে। 

আজ বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, ‘মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী এখানকার চিকিৎসক এবং আমরা যাঁরা আছি, তাঁদের সকলের সঙ্গে একাধিকবার কথা বলেছেন। এ বিষয়ে প্রতি মুহূর্তে রিপোর্ট তিনি পাচ্ছেন। তবে তিনি এখানে (বিএসএমএমইউ) আসবেন, এমন তথ্য আমার জানা নেই।’ 

বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, ‘আমাদের কাদের ভাই সম্পূর্ণ শঙ্কামুক্ত বলে আমাদের জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।’ 

বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, ‘ওনার (ওবায়দুল কাদের) একটু শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল, ঠান্ডার কারণেই। আর প্রেশার হাই ছিল। মূলত এই দুই কারণেই তিনি এসেছিলেন। এখন প্রেশার স্থিতিশীল রয়েছে বলে চিকিৎসকেরা আমাদের জানিয়েছেন। শ্বাসকষ্টও প্রশমিত হয়েছে। চিকিৎসকেরা বলেছেন, তাঁর বিশ্রাম দরকার।’ 

বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, তিনি অসুস্থ শরীর নিয়ে বেশি পরিশ্রম করেছেন। তাঁকে ঘুমের ওষুধ দেওয়া হচ্ছে, তিনি ঘুমাচ্ছেন।
এর আগে গত বছরের ৩ মার্চ গুরুতর অসুস্থ হয়ে বিএসএমএমইউয়েই ভর্তি হয়েছিলেন কাদের। পরে তাঁকে চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর নেওয়া হয়। সেখানে দুই মাসেরও বেশি সময় তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য