মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জমিতে বাঁশ-খুটির বেড়া, পুলিশের বাধা


ফরহাদ হোসেন জনি, মুন্সীগঞ্জঃ
  

সিরাজদিখানে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বাঁশ-খুটির বেড়া দিয়ে জমি দখলের চেষ্টা, পুলিশের বাধায় বন্ধ। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল সোমবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে উপজেলার মালখানগর ইউনিয়নের ফেগুনাসার গ্রামে।

ফেগুনাসার গ্রামের আলমাস আলীর ছেলে জিন্নাহ খান (৬৩) বাদী হয়ে, একই গ্রামের শামসুল দোহার ছেলে আনোয়ারুল হক পরশ (৫৭) ও ওয়াজ উদ্দিনের মেয়ে রশিদা বেগমকে (৪২) বিবাদী করে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি পিটিশন মামলা দায়ের করেন। যার নং ২৬৪/২০২০, ফৌ. কা. বি. ১৪৫ ধারা। মামলার প্রেক্ষিতে আদালত থেকে গত ২৮/১০/২০২০ একটি নোটিশটি কার্যকর করেন থানার সহকারি উপ পরিদর্শক মো. মাহমুদুল হাসান। নোটিশে বলা হয় মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত, নিজ নিজ অবস্থানে থেকে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে।    

সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জিন্নাহ খান ওরফে জিন্নত মিয়া নিজে মামলার বাদী হয়েও আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে, জমিতে প্রবেশ করে কাজ করছেন। গত দুই দিন ধরে শ্রমিক দিয়ে কাজ করেন তিনি। বিবাদী পরশ রবিবার রাতে থানায় গিয়ে জিডি করেন এবং গতকাল ঘটনাস্থল পুলিশ ্এসে কাজ বন্ধ করে করেদেন। 

আনোয়ারুল হক পরশ জানান, আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আদালতের নিষেধাজ্ঞা ধাকা সত্ত্বেও বাদী নিজেই আইন অমান্য করে কাজ করছেন। আমি ঢাকায় থাকি, গতকাল খবর পাই জিন্নত জমিতে খুটি গাড়ছে। আমি থানায় যাই জিডি করি। পুলিশ এসে কাজ বন্ধ করে দেয়।  জিন্নত আলী খান বলেন, আমি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করি নাই। আমি লোকজন দিয়ে বাঁশ গুলো ঠিক করে রাখছিলাম।আমার বাঁশগুলো নস্ট হয়ে যাচ্ছে, আবার চোরে ও নিয়ে যাচ্ছে।

সিরাজদিখান থানার সহকারি উপ-পরিদর্শক মো. মাহমুদুল হাসান বলেন, আজ (সোমবার) খবর পাই জিন্নত আলী জমিতে বাশঁ-খুটি গাড়ছে। ঘটনাস্থল এসে কাজ বন্ধ করি শ্রমিকদের বিদায় দিতে বলি এবং হুশিয়ার করে দিয়েছি। আদালতের নোটিশ আগেও তাদের দিয়েছি। উভয় পক্ষ শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় রেখে স্ব-স্ব অবস্থানে থাকবে। মামলা নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত কেউ এখানে আসবে না।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য