পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে ধর্ষণ মামলার আপোষের কথা শুনে এক শিক্ষার্থীর বিষ পান করে আত্নহত্যার চেষ্টা


মো. কামরুল ইসলাম কামু পঞ্চগড়ঃ
 

পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে ধর্ষণ মামলার আপোষের কথা শুনে এক শিক্ষার্থী বিষ পান করে আত্নহত্যার  চেষ্টা করেছে। বর্তমানে ওই শিক্ষার্থী পুলিশের তত্বাবধানে আটোয়ারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। রোববার (১৩ ডিসেম্বর) রাতে ওই শিক্ষার্থীর বাড়িতে রাখা মরিচের আবাদে ব্যবহৃত একটি তরল কিটনাশক খেয়ে আত্নহত্যার চেষ্টা করে।

পরে তার চিৎকারে বাবা মা সহ প্রতিবেশিরা এসে তাকে উদ্ধার করে দ্রুত আটোয়ারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। জানা যায়, চলতি বছরের গত ১১ সেপ্টেম্বর  দশম শ্রেণির ওই শিক্ষার্থী তার বাড়ি থেকে নানার বাড়িতে বেড়াতে গেলে এসময় এ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান হাবিব নামে এক আইনজীবি ওই স্কুল শিক্ষার্থী কৌশলে মোটর সাইকেল যোগে তার বাবার সাথে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে ওই স্কুল শিক্ষার্থীকে হাবিব নামে ওই আইনজীবী ধর্ষণ করে। 

এসময় স্কুল শিক্ষার্থী  চিৎকার করলে সাথে সাথে স্থানীয়রা দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে স্কুল শিক্ষার্থীকে  উদ্ধার করে এবং ধর্ষক হাবিবুর রহমান হাবিবকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে তারা। সেদিন রাতে ওই শিক্ষার্থীর বাবা আটোয়ারী থানায় বাদি হয়ে এ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমানকে প্রধান আসামী করে তিনজনের নামে একটি ধর্ষণ ও অপহরণ মামলা দায়ের করে। বর্তমানে মামলার প্রধান আসামী হাবিবুর রহমান জেলহাজতে রয়েছে। 

 আসামী হাবিবুর রহমান হাবিবের শাস্তির দাবিতে আটোয়ারী ও পঞ্চগড়ে বেশ কয়েকবার মানববন্ধন করে পুজা উদযাপন পরিষদ। ওই শিক্ষার্থীর বাবা মার অভিযোগ মামলা চলাকালীন অবস্থায় উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও একটি জাতীয় দৈনিকের পত্রিকার উপজেলা সংবাদদাতা মনোজ রায় ও আলোয়া খোয়া ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রতন বিলাশ বর্মন মামলা আপোষের জন্য গত প্রায় দুই মাস ধরে বিভিন্ন ভাবে প্রলোভন দেখিয়ে আসছেন। 

কয়েকদিন আগে কথিত সাংবাদিক মনোজ রায় ও ইউপি সদস্য রতন মিমাংসার কাগজ তৈরী করে বাড়িতে নিয়ে আসেন এবং ওই কাগজে স্বাক্ষর করার জন্য পরিবারের সদস্যদেরকে চাপ দিতে থাকেন। ওই শিক্ষার্থী আপোষ মিমাংসার কথা জানতে পারলে অসম্মতি জানায়।পরে তাকে মানষিক চাপ সৃষ্টি করা হয়। 

নিরুপায় হয়ে ওই শিক্ষার্থী বিষ পান করে আত্নহত্যার চেষ্টা করে।ঘটনাটি জানতে পেরে আটোয়ারি থানা পুলিশ তাৎক্ষনিক হাসপাতালে পুলিশ পাহারায় চিকিৎসার ব্যবস্থা করে।আটোয়ারী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: হুমায়ুন কবির জানান,রোগী বর্তমানে পর্যবেক্ষণে রয়েছে।৭২ ঘন্টার আগে এ বিষয়ে কিছু বলা যাচ্ছেনা। শিক্ষার্থীর বাবা জানান, আমার মেয়েকে নায্য বিচার থেকে বঞ্চিত করে সাংবাদিক মনোজ ও রতন মেম্বার সহ যারা মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিয়েছেন তাদের আমি দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি চাই।  

এ বিষয়ে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মনোজ রায় ও রতন মেম্বার। তারা মুঠোফোনে জানান, আপোষের প্রস্তাব আসতেই পারে। কিন্তু আমরা এ বিষয়ে উদ্যোগ নেইনি।  এদিকে আজ সোমবার দুপুরে ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদর্শন কুমার রায়।রাতে আটোয়ারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইজার উদ্দীন জানান, শিক্ষার্থীর বাবা আটোয়ারী থানায়২ জনের নাম উল্লেখ্য করে অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য