লালমনিরহাটে বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠ জুড়ে এখন সরিষা ফুলের সমারোহ


হাসানুজ্জামান হাসান,লালমনিরহাটঃ

লালমনিরহাটে বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠ জুড়ে এখন সরিষার খেতে ফুলে ঢাকা। চারদিকে তাকালেই দেখা যায় হলুদ রঙের ফুলের সমারোহ। ফুলের সঙ্গে মৌমাছির গুঞ্জন শুনতে বেশ ভালো লাগে। সরিষার মাঠে গেলে ফুলের গন্ধে মন ভরে ওঠে। হলুদ রং মন কেড়ে নেয়। প্রাকৃতিক কোনো বিপর্যয় না হলে এ বছর লালমনিরহাটে সরিষার বাম্পার ফলন আশা করছে কৃষকেরা।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও এলাকার কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতি বছর লালমনিরহাট জেলার ৫টি উপজেলার ৪৫টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভায় এই সময়ে প্রচুর পরিমাণে সরিষার আবাদ হয়। ফলনও হয় বেশ ভালো। আমন ধান কাটার সঙ্গে সঙ্গে কৃষক কোমর বেঁধে মাঠে নামেন সরিষার আবাদ করতে। এক সময় লালমনিরহাটে আমন ধান কাটার পর বিস্তৃর্ণ জমিগুলো পড়ে থাকত। কিন্তু বর্তমানে লালমনিরহাটে আমন ধানের জমিতে সরিষার আবাদ হচ্ছে। কৃষকরা আশা করছেন কোনো রোগবালাই না হলে এবার লালমনিরহাটে সরিষার বাম্পার ফলন হবে।জেলার  পাঁচ উপজেলায় বিস্তৃর্ণ মাঠে ব্যাপক হারে সরিষার চাষ হয়েছে।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার মোগলহাট ইউনিয়নের কাকেয়া টেপা গ্রামের কৃষক বলেন, এ বছর তিনি ১বিঘা জমিতে সরিষার আবাদ করেছেন। এখন পর্যন্ত কোনো প্রকার রোগবালাই দেখা দেয়নি। প্রাকৃতিক কোনো দূর্যোগ না হলে বিঘা প্রতি ৪ থেকে ৬মন হারে সরিষার ফলন হবে।

আদিতমারী উপজেলার রইচবাগ এলাকার কৃষক আব্দুর রহিম বলেন, সরিষা আবাদের পরই জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা যায়। এতে জমিতে সার কম লাগে। তাছাড়া সরিষার পাতা ও শিকড় সবুজ সারের কাজ করে এবং বোরো ধানের ফলনও ভালো হয়। কালীগঞ্জ উপজেলার কাকিনা ইউনিয়নের কৃষক মনছুর আলী জানান, সরিষার চাষে লাভ বেশি খরচ কম। তাছাড়া সহজেই বিক্রি করা যায়।সরিষা ঘরে তোলার পর ওই জমিতেই আবার কম সারে বোরো ধানের চাষ করা যায়। তাই আমি প্রতিবছর সরিষা চাষ করি।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানাযায়, লালমনিরহাটে এবার বাম্পার সরিষার আবাদ হয়েছে। আমরা কৃষককে একের অধিক ফসল ফলানোর জন্য নানাভাবে প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছি। তাছাড়া উপ-সহকারী কৃষি কর্সকর্তারা সার্বক্ষণিক মাঠে কৃষকের খোঁজ খবর নিচ্ছে, যাতে কৃষকের কোনো প্রকার সমস্যার সৃষ্টি না হয়। আশা করা যায়, প্রাকৃতিক কোনো বিপর্যয় না ঘটলে এবার জেলায়  সরিষার ফলন ভালো হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য