ডোমারে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত; প্রধান শিক্ষকসহ ৪জন শ্রীঘরে

রতন কুমার রায়,স্টাফ রিপোর্টার:
 
নীলফামারীর ডোমারে সনাতন ধর্মালম্বীদের কালীমন্দিরে মাংসের টুকরা ছুড়ে মারার সময় এক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ ৪জনকে হাতেনাতে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করেছে এলাকাবাসী। আটককৃতদের রবিবারে দুপুরে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

তারা হলেন, পৌর এলাকা সাহাপাড়ার আব্দুল করিমের ছেলে বামুনীয়া কালীতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শরিফুল ইসলাম মানিক, পশ্চিম বোড়াগাড়ী কলেজ পাড়ার মৃত ইদু মামুদের ছেলে শফিক মিয়া, বড় রাউতা  মাঝাপাড়া গ্রামের মৃত দেবেন্দ্রনাথ বর্মণের ছেলে ফুলেশ্বর বর্মণ ও পশ্চিম চিকনমাটি ময়দান পাড়ার মৃত সোলায়মান আলীর ছেলে জয়নাল আবেদীন।

মামলা সূত্রে জানাযায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের বড় রাউতা কালীবাড়ী আশ্রমের কালীমন্দিরে শনিবার রাতের আধাঁরে লাল কাগজে মোড়ানো একটি পটলা ছুড়ে মারে অভিযুক্তরা। 

এসময় এলাকাবাসীর কয়েকজন তা দেখতে পায়। তারা পটলাটি খুলে একটি মাংসের টুকরো পায়। ওই সময় এলাকাবাসী তাদের আটক করে পুলিশে খবর দেয়। সনাতন ধর্মালম্বীরা ওই পটলায় গো-মাংস ছিল বলে অভিযোগ করে। পুলিশ ঘটনাস্থলে 

পৌঁছে আটককৃতদের থানায় নিয়ে আসে। এব্যাপারে বড় রাউতা কালী মন্দির কমিটির সভাপতি ভূবন চন্দ্র রায় বাদী হয়ে ডোমার থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ০২, তাং ০৪.১০.২০২০ইং। 

ডোমার থানা অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজার রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করি। গ্রেফতার কৃতদের জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য