লিভার টিউমারে আক্রান্ত সবজি বিক্রেতা বুকুনের পাশে দাড়ালেন যুবলীগ


মিজানুর রহমান মিলন, স্টাফ রিপোর্টারঃ

দীর্ঘদিন ধরে লিভার টিউমারে  আক্রান্ত সবজি বিক্রেতা রাজকুমার বুকুনের (৩৬) চিকিৎসা সহায়তার জন্য পাশে দাড়ালেন সৈয়দপুর সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক বিশিষ্ট সমাজসেবক মো. মোস্তফা ফিরোজ। গতকাল সোমবার রাতে তিনি শহরের হাতিখানা বিস্কুট ফ্যাক্টরী এলাকায় বুকুনের বাসায় গিয়ে তাঁর চিকিৎসার বিষয়ে খোঁজ খবর নেন। পরে তাঁকে চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহায়তা করেন। 

জানা গেছে, ওই এলাকার মৃত রেখা শাহ ও মিঠুন ইরানীর পুত্র রাজকুমার বুকুন। পেশায় খুচরা সবজি বিক্রেতা। স্ত্রী মায়ারানী, পুত্র রঞ্জন ও কন্যা পূজাকে নিয়ে তাঁর সাজানো সংসার। সবজি বিক্রি করে কোন মতে ভালই চলছিল তাঁর সংসার।

কিন্তু কয়েকমাস আগে হঠাৎ অসুস্থ্য হয়ে পড়ে সে। সেসময় স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসা নিয়ে মোটামুটি সুস্থ্য হয়ে ওঠেন। তবে মাঝে মাঝেই পেট ফুলে যাওয়াসহ খাওয়ায় অরুচি ও অন্যান্য সমস্যা দেখা যায়। অসুস্থতার কারণে তাঁর ক্ষুদ্র ব্যবসা সবজি বেচাকেনাও বন্ধ হয়ে যায়। বাড়তে থাকে শারীরিক অসুস্থতা। 

তাঁকে সুস্থ্য করতে সকল পুঁজি খরচ করে চলে চিকিৎসা। শুরু হয় অভাব। স্ত্রী সন্তান নিয়ে রাজকুমার পড়ে চরম বেকায়দায়। পরবর্তিতে এলাকাবাসীর পরামর্শে রংপুরে লিভার বিশেষজ্ঞ ডা. নুরুল ইসলাম খানের শরনাপন্ন হন। সেখানে চিকিৎসকের পরামর্শে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখা যায় তাঁর লিভারে টিউমারের অস্তিত্ব রয়েছে। 

এমন পরিস্থিতিতে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ে সে। তখন থেকে চিকিৎসকের পরামর্শে ওষুধ খেতে থাকেন। তার চিকিৎসা ও ওষুধের ব্যয় মেটাতে  হিমশিম খায় সে। এ অবস্থায়  সকল পুঁজি শেষ করে সর্বশান্ত হয়ে পড়েন বুকুন। আর তার অসহায়ত্বের বিষয়টি জানতে পারেন হাতিখানা এলাকার স্বেচ্ছাসেবী যুবকরা। তাঁকে চিকিৎসার বিষয়ে সহযোগিতা করতে চেস্টা চালান। 

তাদের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারেন সৈয়দপুর উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক মো.মোস্তফা ফিরোজ। তিনি গতকাল সোমবার রাতে হাতিখানা বিস্কুট ফ্যাক্টরী এলাকায় সবজি বিক্রেতা রাজকুমার বুকুনের বাসায় যান। 

এসময় তিনি বুকুনের চিকিৎসার বিষয়ে খোঁজ নেন। তিনি বুকুনকে জানান, হতাশ হওয়া যাবেনা। সাহসের সাথে পরিস্থিতি মোকাবেলা করে চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হবে।  এজন্য তিনি সবধরনের সহযোগিতা করবেন বলে জানান। পরে প্রাথমিক পর্যায়ে তাঁর চিকিৎসা ও পরিবারের খরচের জন্য আর্থিক সহায়তা করেন। 

এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য জাহাঙ্গীর আলম টোকন, ৯ নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি মো. শহিদুল ইসলাম লিটন ৯নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি কাদের হোসেন ইয়াংস্টার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সভাপতি বাপ্পি আরনাফসহ স্বেচ্ছাসেবক নাসিম, রাসেল, রতন প্রমুখ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে যুবলীগ নেতা মোস্তফা ফিরোজ বলেন একজন মানুষ হিসেবে মানবিক কারণেই তিনি বুকুনের পাশে দাড়িয়েছেন। তাঁকে সুস্থ্য করতে সবধরনের সহায়তা করা হবে। তিনি বলেন সকলের দোয়া চাই। যাতে আমি অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়ে সেবা করতে পারি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য