হারবাং পল্লীবিদ্যূৎ সংযোগ নিয়ে সৃষ্ট মারামারির ঘটনায় সোহেল আরমানকে প্রাণ নাশের হুমকী

নাছির উদ্দিন, চকরিয়াঃ 
চকরিয়া উপজেলার হারবাং ইউনিয়নের গয়ালমারার বাসিন্দা সোহেল আরমান নামক সমাজের এক গণ্যমান্য ব্যাক্তিকে প্রাণ নাশের হুমকী দিয়ে যাচ্ছে একদল সন্ত্রাসী।

জানা যায় ১১ সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং হারবাং ইউনিয়ন এর গয়ালমারা এবিসি ব্রীকফিল্ড নামক স্থানে পল্লী বিদ্যুতের নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত সরবরাহের জন্য দুটি ট্রান্সফরমার স্থাপন ও পল্লী বিদ্যুৎ এর তারের সাথে গাছের অসংখ্য ডাল পালা লেগে থাকায় বড় ধরনের দূর্ঘটনা সংঘটিত হতে পারে মর্মে এলাকার কিছু সচেতন মহল চকরিয়া পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের লোকজনকে খবর দেয়।চকরিয়া পল্লী বিদ্যুৎ অফিস থেকে লাইনম্যান শামীম এর নেতৃত্বে একটি টিম এসে ট্রান্সফরমার স্থাপনের কাজ শুরু করে।

অপরদিকে পল্লী বিদ্যুৎ টিমের নির্দেশনা মোতাবেক অনাকাঙ্ক্ষিত বৈদ্যুতিক দূর্ঘটনা থেকে মুক্তি পেতে এলাকার কিছু সচেতন মহল সম্মিলিত ভাবে তারের সাথে লাগানো ডালপালা সমূহ কেটে ফেলে। গাছের ডাল কাটার খবর পেয়ে গাছের মালিক দাবীদার স্থানীয় মৃত আব্দুর রহমানের পুত্র জৈনেক নুরুল আলম (৪৫), তার ছেলে সাহেদুল ইসলাম, স্ত্রী ছেনুয়ারা বেগম, মৃত নুরুল ইসলামের পুত্র জসিম উদ্দিন, ও মানিক সহ অন্তত ১০-১২ জন লোক সন্ত্রাসী কায়দায় দারালো অস্ত্র ও লাঠিশোটা নিয়ে এলাকার সচেতন মহলদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়।এই সময় মৃত আব্দুল মোতালেবের পুত্র নুরুল কবির (৬০) কে  মাথা, গর্দান ও কোমরে এলোপাতাড়ি কিরিচ দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। মূমুর্ষ অবস্থায় নুরুল কবিরকে প্রথমে চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে দ্রুত চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে।

এই ঘটনায় আহত নুরুল কবির এর ছেলে মহিউদ্দিন (৩২) বাদি হয়ে নুরুল আলম (৪৫) কে প্রধান আসামী করে মোট পাঁচ জনের বিরুদ্ধে ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং চকরিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন যার মামলা নং ২০/২০২০ ইং।

অপরদিকে উক্ত  ঘটনার আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবিতে ১৪ সেপ্টেম্বর সকাল ১১ টায় হারবাং ইউনিয়ন এর গয়ালমারা নামক স্থানে বিশাল মানব বন্ধন করে এলাকাবাসী।
এদিকে মানববন্ধনে উপস্থিত হয়ে আহত ব্যাক্তিদের সহযোগিতা করার অযুহাতে স্থানীয় আক্তার হোছাইন এর পুত্র সোহেল আরমান (৩০) কে সন্ত্রাসী নুরুল আলম গং মিথ্যা মামলা সহ প্রাণ নাশের হুমকী দিয়ে যাচ্ছে বলে জানায় সোহেল আরমান। 

সোহেল আরমান এর সাথে কথা বলে জানা যায়, তিনি ১৫ সেপ্টেম্বর সকাল ১০ ঘটিকার সময় চাকরিতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে মটর সাইকেল যোগে বাড়ি থেকে বের হলে পথিমধ্যে  গাড়ি গতিরোধ করে সন্ত্রাসী নুরুল আলম ও তার সহযোগী একদল সন্ত্রাসী তাকে মারিবে কাটিবে ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিবে মিথ্যা মামলায় আসামী করবে এমন কি প্রয়োজনে খুন করে লাশ লোকিয়ে পেলবে বলে হুমকি প্রদান করে। সোহেল আরমান নিজের ও পরিবার এর সদস্যদের জীবনের নিরাপত্তার জন্য সন্ত্রাসী নুরুল আলম (৪৫) কে প্রধান আসামী করে সর্বমোট পাঁচ জনের বিরুদ্ধে ১৬ সেপ্টেম্বর একটি সাধারণ ডায়েরী করে।যার ডায়েরি নং ৬৭২।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য