সৈয়দপুরে টানা বর্ষণে পানিবন্দি মানুষজনের মাঝে পৌর মেয়র আমজাদ ও আ'লীগ নেতা বাদলের খাদ্য বিতরণ


মিজানুর রহমান মিলন স্টাফ রিপোর্টারঃ 

টানা চারদিনের ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে পানিবন্দি হয়ে কর্মহীন হয়ে পড়া  সৈয়দপুর পৌর এলাকার মানুষজনের মাঝে শুকনো খাবার ও খিচুরি বিতরণ করেছে পৌর পরিষদ ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক পৌর মেয়র আখতার হোসেন বাদল। মেয়র আমজাদ হোসেন সরকারের নির্দেশে পৌর এলাকার হাওয়ালদারপাড়া


হাতিখানা,মুন্সিপাড়া,  নয়াবাজার, বাঁশবাড়িসহ বিভিন ওয়ার্ডে রান্না করা হয়েছে খিচুড়ি। পরে এসব খিচুড়ি বিতরণ করা হয় পানিবন্দি মানুষজনের মাঝে। ওয়ার্ডের কাউন্সিলরসহ মেয়রের প্রতিনিধিদের মাধ্যমে বিতরণ করা হয় এসব খাবার। শহরের মুন্সিপাড়া এলাকায় ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের মানুষজনের মাঝে খাদ্য বিতরন করা হয়। মেয়র আমজাদ হোসেন সরকারের পক্ষে এসব খাদ্য বিতরন করেন ব্যবসায়ী ও স্বেচ্ছাসেবক জীম রাসেল। এসময় উপস্থিত ছিলেন মো. সাজেদুজ্জামান দিনার, আবু নাসিম মিঠু,আসলাম মল্লিক, মো.একরামসহ অন্যান্যরা। এদিকে ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডের হাতিখানা ক্যাম্প,মাছুয়াপাড়া,


হাতিখানা ও অফিসার্স কলোনী এলাকায় পৌর মেয়রের পক্ষে খাদ্য বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন প্রকৌশলী হুসেইন মোহাম্মদ আরমান, আনোয়ার হোসেন হাবলু, আলাউদ্দিন প্রমুখ।


এদিকে টানা বৃষ্টির কারনে  পানিবন্দি হয়ে পড়া অসহায় মানুষজনের সাথে সাক্ষাত করেছেন সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র আখতার হোসেন বাদল। আজ রবিবার তিনি পৌর এলাকার বিভিন্ন ওয়ার্ড পরিদর্শন করে পানিবন্দি মানুষজনের সাথে কথা বলেন এবং সার্বক্ষনিক  তাদের পাশে থাকার আশ্বাস দেন সাবেক মেয়র আখতার হোসেন বাদল। পরে শহরের কুন্দল, নতুন বাবুপাড়াসহ বিভিন্ন ক্যাম্প ও পাড়া মহল্লায় তার পক্ষ থেকে পানিবন্দি মানুষজনের মাঝে রান্না করা খাদ্য বিতরন করা হয়। এব্যাপারে আখতার হোসেন বাদলের সাথে কথা হলে তিনি বলেন আওয়ামী লীগের একজন কর্মী হিসেবে জনগনের পাশে দাড়ানো তাঁর দায়িত্ব। পানিবন্দি মানুষজন যাতে খাদ্য সংকটে না পড়ে সেজন্য তাঁর পক্ষ থেকে সবধরনের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। অপরদিকে পৌর এলাকার প্রতিটি ওয়ার্ড


 কাউন্সিলর পানিবন্দি মানুষজনের মাঝে খিচুড়ি বিতরন করেন। পৌর পরিষদের একটি সুত্র জানায়, পানিবন্দি মানুষজনের জনের মাঝে খাদ্য বিতরন অব্যাহত থাকবে। এদিকে সৈয়দপুরের  ইউনিয়নগুলোতে দূর্ভোগে পড়া মানুষজনের মাঝে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে ইউনিয়ন পরিষদ,বিভিন্ন রাজনৈতিক দলসহ ও এলাকাবাসী। স্থানীয় আওয়ামীলীগের সুত্রে জানা গেছে গত চারদিনের টানা বর্ষনে পানিবন্দি মানুষজনের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরনসহ অন্যান্য সহায়তা দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। 


প্রসঙ্গত: সৈয়দপুরে গত চারদিনের টানা বর্ষনে উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়ন ও পৌর এলাকার প্রায় ২০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। প্রতিটি ইউনিয়নের পাড়া মহল্লাসহ শহরের নতুন বাবুপাড়া,মিস্ত্রিপাড়া,পুরাতন বাবুপাড়া,কাজীপাড়া,


গোলাহাট হাওয়ালদারপাড়া


বাঙ্গলীপুর, বাঁশবাড়ি, নীচুকলোনী, হাতিখানা, মাছুয়াপাড়া, কয়ানিজপাড়া, ও কুন্দল এলাকার প্রায় প্রতিটি বাসাবাড়িতে পানি ঢুকে পড়েছে। পানিতে ডুবে রয়েছে পাড়া মহল্লার রাস্তাঘাটসহ সরকারি খাদ্যগুদাম, ১০০ শয্যা হাসপাতাল, বিমানবন্দর সড়ক, সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের ক্লাস রুম ও আবাসিক এলাকা।


সেখানে খাদ্য সংকটে ভুগছে তারা। সৈয়দপুর আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে,গত ২৪ ঘন্টায় এ অঞ্চলে ২০২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে। যা এ বছরে এ অঞ্চলের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত। পানি উন্নয়ণ বোর্ড কর্তৃপক্ষ বলছে, সৈয়দপুর শহরের পাশ দিয়ে বয়ে চলা খড়খড়িয়া নদীর পানি বিপদসীমার ৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যা এ বছরের রেকর্ড ছাড়িয়েছে। ফলে হুমকির মুখে পড়েছে সৈয়দপুর শহর রক্ষা বাঁধ। বাঁধ রক্ষার্থে ইতিমধ্যে দূর্বল স্থানে ১০০ জিও ব্যাগ বসানো হয়েছে। অপরদিকে ইউনিয়নগুলোতে প্রায় একই অবস্থা। সেখানকার পানিবন্দি মানুষজন চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছে। চারদিনের টানা বর্ষণে সৈয়দপুর উপজেলার নিম্নআয়ের মানুষেরা চরম কস্টে রয়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য