কালীগঞ্জে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে দোকান ঘরে আগুন

হাসানুজ্জামান হাসান, লালমনিরহাটঃ 
লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে  প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজ দোকান ঘরে কেরসিন ঢেলে  অগুন লাগিয়ে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার (১৮ সেপ্টেম্বর) ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কাকিনা কাচারি  বাজার এলাকায়। এতে ভূক্তভোগী পরিবারটি চরম আতঙ্ক ও নিরাপত্তাহীনতায় দিন কাটাচ্ছে।

স্থানীয়রা জানায়, ওই এলাকার সাবেক পরিবার পরিবারপরিকল্পনা অফিসের কর্মচারি আনোয়ার হোসেন ও প্রতিবেশি মরহুম সেবাবুর রহমানের  মধ্যে দীর্ঘদিন যাবৎ জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। বর্তমানে জমিটি নিয়ে আদালতে  মামলা চলমান রয়েছে। 

সর্বশেষ গত শুক্রবার প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে আনোয়ার হোসেন ও তার ছেলে আঙ্গুর তার লোকজন নিয়ে বন্ধ দোকান ঘরে নিজেই আগুন লাগিয়ে দোকানের পিছন দিয়ে বেড় হয়ে যায়। বাহিরে গিয়ে  পুলিশকে মোবাইল ফোনে আগুন লাগানোর সংবাদ  দিলে  কালীগঞ্জ থানার কাকিনা ইউনিয়নের দায়িত্বে থাকা উপ পুলিশ পরিদর্শক সাইদুল ইসলাম  দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে   জনগনের সহায়তায় আগুন নিভে ফেলে। এঘটনায় উত্তেজিত জনসাধারণ আনোয়ার ও তার ছেলের শাস্তি দাবি করেন।

উপস্থিত লোকজন সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান খালেকুজ্জামান হেলাল জানায়, কাচারি বাজারের বাসিন্দা সেবাবুর রহমান ১৯৪৭ সালের পর থেকে কাচারি বাজারের বর্তমানে ভোগদখলীয় জমিতে বাড়ি করে আছেন। প্রতিপক্ষ আনোয়ার হোসেন চাকুরির সুবাদে কাকিনায় সেবাবুর রহমানের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। সে সুবাধে  সেবাবুর রহমানের ঘুটিনাটি জেনে ফেলে। পরবর্তীতে  সুচতুর আনোয়ার সেবাবুরের এই জমির উপর লোভ পরে। পরে চাতুরি করে ওই জমির আর্ধেক আংশ খাস জমি দেখিয়ে নিজ নামে করে নেয়। 

এবং গোপনে মোকদ্দমা করে একতরফা রায় ও উচ্ছেদের মাধ্যমে দখল নেয়।এ দেখে এলাকাবাসি হতবম্ব। সেবাবুর রহমান এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করলে পুর্বের রায় বাতিল করে দেয় আদালত। পালটা-পাল্টি মামলা মোকদ্দমা চলতে থাকে। এর এক পর্যায় আদালত ওই জমিন উপর নিষেধাজ্ঞা  জারি করে। তার পরও আনোযারের লোকজন জমির উপর দোকান ঘর মেরামত করতে থাকে। এতে সেবাবুর রহমানের ছেলে জিন্না বাধা দিলে আবারো সংঘাত বেধে যায়। 

আগুন লাগানো দোকানের সামনের দোকানদার বায়োজিদ হোমিও ডাক্তার বলেন, সকালে দোকান খোলা ছিল আনােয়ারের জামাই মমিনুর দোকান ঘুলে ঘন্টা খানেক পর বন্ধ করে। তার কিছুক্ষণ পরে আনোয়ার চাচা, আংগুরসহ বেশ কয়েকজন দেকানের পিছনে গেলে আগুন লেগে যায়। দেকানের সামনের ঝাপ বন্ধ থাকায় উপরে টিন না থাকায় ধোয়া উঠতে থাকে। কয়েক মিনিটের মধ্যে পুলিশ আসে। পুলিশ ও  আশপাশের দোকানদার মিলে আগুন নিভে ফেলে।

এ ব্যাপারে আনোয়ার হোসেন গত ১১ সেপ্টম্বর হামলা,ছিন্নাই ও ১৫ সেপ্টেম্বর অনধিকার প্রবেশ,মারধর,হুমকিসহ নানা কারনে আদালতে মামলা করেন। সেবাবুর রহমানের ছেলে জিন্না বলেন, আনােযার আর্থ ও পভাবশালি হওয়ার একটির পর একটি মামলা দিয়ে আমাদের পরিবারকে নিঃস্ব করে দিয়েছে। মামলা হামলার কারনে আমার বাবা মারা যান। তিনি ক্ষমতার দাপটে আমার বৈধ জমি বেদখল করে নিচ্ছে। আমি এর প্রতিকার চাই।

এবিষয়ে আনোয়ার বলেন,আমি মামলা করে জমি পেয়েছি এবং পেয়াদা এসে জমি বুঝে দিয়েছে। সে জমিতে আমি দোকান নির্মান করি। তারা আমার উপর হামলা চালিয়েছে এজন্য মামলা করি।

এবিষয়ে উপপুলিশ পরিদর্শক সাইদুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে জনগনের সহায়তায আগুন নেভানো হয়।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য