৫.৭ কি:মি রাস্তা পাকাকরনে বদলে গেলো লক্ষাধিক মানুষের জীবনমান

রাজু আহমেদ,(নাটোর)সিংড়া,
তাজপুর শেরকোল ইউনিয়নবাসির দীর্ঘদিনের অবহেলিত জনপথ পাকাকরণের মাধ্যমে পুরণ হলো মানুষের প্রানের দাবি। বদলে গেলো এলাকার লক্ষাধিক মানুষের জীবনমান। জানা গেছে, এলজিইডির ববাস্তবায়নে তাজপুর থেকে নওগাঁ বাজার ভায়া শাহাবাজপুর পর্যন্ত . কি.মি. এই রাস্তাটি নির্মানে ব্যয় হয়েছে প্রায় কোটি ৯০ লক্ষ টাকা। অতীতে এটি ছিল অবহেলিত চলাচলের অনুপযোগী একটি রাস্তা। রাস্তাটির নির্মান কাজ সমাপ্ত হওয়ায় বর্তমানে এটি প্রায় ১২ টি গ্রাম আত্রাই উপজেলার সাথে সিংড়া উপজেলায় যোগাযোগের অন্যতম রাস্তা হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এই রাস্তাটি পাকা হওয়ার ফলে ইতিমধ্যে সুফল পেতে শুরু করছে এলাকাবাসী। এতে প্রায় লক্ষাধিক লোকের জীবনমান পরিবর্তন ঘটবে। এলাকাবাসীর জানায়, বর্তমানে সিংড়ার সাথে তাদের যোগাযোগ সহজ হয়েছে এবং এই রাস্তার ফলে কৃষকরা ধানসহ অন্যন্যে কৃষি পণ্যের ন্যায্য দাম পাবে। সহজে যাতায়াত করতে পারবে। এলাকার ছেলে মেয়েদের উচ্চ শিক্ষায় উৎসাহ বাড়বে। স্থানীয় কয়েকজন জানান, অত্র এলাকা ছিলো খুবই অবহেলিত, দুর্গম। এক হাঁটু কাঁদা মাটি পেরিয়ে সিংড়া পৌর এলাকা কিংবা তাজপুর বাজার যেতে হয়েছে। একটু বৃষ্টি হলে কোনো রকম যানবাহন চলতো না। কৃষকদের নিদারুন কষ্ট করতে হয়েছে। বাজার থেকে পণ্য সরবরাহ ক্রয় করে বাড়ি আসতে মাথার ঘাম পায়ে পড়েছে। বর্তমানে খুব সহজে পণ্য সরবরাহ বাজারে যেতে পারছে তারা। স্কুলে ছাত্রছাত্রীদের মাইলের পর মাইল পায়ে হেঁটে যেতে হবে না। অসুস্থ রোগীকে সহজে উন্নত সেবার জন্য নিয়ে যেতে পারবে। তাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান মিনহাজ উদ্দিন বলেন, এটি ছিল নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি। অঞ্চলের জনগনের প্রানের দাবি যেটি পুরণ হওয়ার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলককে ধন্যবাদ জানান এবং বলেন এই রাস্তার ফলে জনগণের সিংড়ার সাথে যোগাযোগ বেড়েছে এবং জনগণ প্রতিনিয়ত তার সুফল ভোগ করছে। রাস্তাটি হওয়ার ফলে জনগণের দীর্ঘদিনের দুর্ভোগের অবসান হলো। শেরকোল ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ লুৎফুল হাবিব রুবেল জানান, অবহেলিত জনপদের মানুষ কখনো কল্পনা করতে পারেনি। কিন্তু মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি মহোদয়ের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় তা বাস্তবতায়। রাস্তার ফলে এলাকার মানুষের আর্থ, সামাজিক, অর্থনৈতিক এবং ব্যবসার উন্নয়ন ঘটবে। মানুষের দীর্ঘদিনের দুর্ভোগের অবসান ঘটলো। এজন্য তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রতিমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। উপজেলা প্রকৌশলী হাসান আলী জানান, গ্রেটার রাজশাহী ডিভিশন উন্নয়ন প্রকল্প এর আওতায় কোটি ৯০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে বৃহত্তর প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। রাস্তাটি টেকসই করার জন্য মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মহোদয় জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন, আমরা তা বাস্তবায়ন করবো। তিনি আরো বলেন, রাস্তাটি বাস্তবায়নে আমরা চেষ্টা করেছি।সিসি ব্লক এবং প্রটেকশন ওয়াল নির্মান করা হয়েছে। রাস্তার দু ধারে বৃক্ষ রোপনের পরিকল্পনা রয়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য