ডিমলায় মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দিন ভাসানী তাঁর ভাতা ও ঈদ বোনাসের টাকা প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিলে দিলেন ।


জাহাঙ্গীর রেজা স্টাফ রিপোর্টারঃ বিশ্বব্যাপী চলমান মরণঘাতী করোনা ভাইরাসের কারণে সকল শ্রেনীর মানুষের মাঝে সরকারের ত্রান বিতরণ সহায়তায় নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার সূর্য সন্তান বীরমুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দিন ভাসানী মাননীয় প্রধানমন্রীর ত্রাণ তহবিলে প্রদান করলেন নগদ ২০ হাজার টাকা। বুধবার (-জুন) সকাল ১১টায় ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে চলমান করোনা ভাইরাসের কারণে সকল শ্রেনীর মানুষের মাঝে সরকারের ত্রাণ বিতরণ সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিলে উপজেলা সদরের দক্ষিন তিতপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ নাসির উদ্দিন ভাসানী (৯৪) তার নিজস্ব একমাসের সম্মানীভাতা ঈদ বোনাসের মোট ২০ হাজার টাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়শ্রী রানীর হাতে তুলে দেন। মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দিন ভাসানীর মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয় কতৃক প্রদত্ত সাময়িক সনদপত্র নং- ১৩৬১৮, প্রধানমন্ত্রী স্বাক্ষরিত সনদপত্র নং-১৮০৫৭, গেজেট নং-১১৭৯ (কুড়িগ্রাম জেলা) বডি নং-২৩/২৪, কল্যানট্রাষ্ট নং- ৪০১১৫, খন্ড নং-১৬৪, লাল মুক্তিবার্তা নং-০৩১৫০২০০৭৯। বৃদ্ধ মুক্তিযোদ্ধার অর্থ গ্রহন করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জয়শ্রী রানী রায় দেশের সূর্য সন্তানকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে ডিমলা উপজেলায় বৃদ্ধ মুক্তিযোদ্ধা যে ভূমিকা রাখলো তা চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে বলে আমি মনে করি।  অর্থ প্রদানের সময় অন্যান্য বীর মুক্তিযোদ্ধাদের উপস্থিতিতে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার সামছুল হক বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সারা দিয়ে যে ভাবে দেশকে রক্ষা করার জন্য আমরা ঝাপিয়ে পড়েছিলাম, তারই সুযোগ্য কন্যা বর্তমান দেশের সফল প্রধানমন্ত্রী জন নেত্রী শেখ হাসিনার ডাকে তেমনি সাড়া দিবো। নাসির উদ্দিন ভাসানী বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের জন্য অনেক করছে, সে হিসেবে আমরা তেমন কিছুই করতে পারিনা, তাই এবার আমার সুযোগ এসেছে দেশের এই ক্রান্তিকালে তার হাতকে শক্তিশালী করার। এমবস্হায় আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম আমার নিজেস্ব একমাসের সম্মানী ঈদ-উল ফিতরের বোনাসের মোট ২০ হাজার টাকা ইউএনও স্যারের মাধ্যমে প্রধান মন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে আমার নিজ হাতে সেই অর্থ দিয়ে দিবো। আল্লাহর অশেষ মেহেরবানিতে সে কাজটি আজ সম্পন করতে পারলাম। মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দিন আরো বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা জীবন বাজি রেখে দেশকে স্বাধীন করেছে। স্বাধীন এই দেশে বর্তমান প্রাণঘাতি করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিলে জীবনের শেষ বয়সে হলেও নিজের একমাসের অনুদান হিসেবে প্রদান করতে পেরে আমি নিজেকে ধন্য মনে করছি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়শ্রী রানী রায় বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দিক নির্দেশনায় ডিমলা উপজেলা প্রশাসনের করোনা পরিস্থিতি সহায়তা তহবিলে ওই অর্থ জমা নেয়া হয়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য