গাইবান্ধার ১৭ আইনজীবীর পেশাগত কাজ করতে আর কোন বাধা নেই আদেশ দিলো হাইকোর্ট

আশরাফুল ইসলাম গাইবান্ধাঃ 
করোনা ভাইরাস কোভিড ১৯ এর কারণে বর্তমান সময়ে গাইবান্ধায় ভার্চুয়াল কোর্টে মামলা পরিচালনা করায় ১৭ আইনজীবীর সদস্যপদ স্থগিত করে গাইবান্ধা জেলা আইনজীবী সমিতির দেওয়া নোটিশ স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। একই সাথে ভার্চুয়াল কোর্টে কোনো আইনজীবী সদস্য ভবিষ্যতে মামলা পরিচালনা করতে গেলে তাঁদের বাধা দেওয়া থেকে বিরত থাকতে গাইবান্ধা জেলা আইনজীবী সমিতিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। জেলার ১৭ আইনজীবীরা হলেন, এ্যাড.পীযূষ কান্তি পাল, এ্যাড.এস এম মাজহারুল ইসলাম সোহেল, এ্যাড.মো. শাহনেওয়াজ খান,এ্যাড. মো. নওশাদুজ্জামান, এ্যাড.মো. সরওয়ার হোসেন বাবুল, এ্যাড.মো. মঞ্জুর মোর্শেদ বাবু, এ্যাড.মো. রেজওয়ানুল হক মণ্ডল, এ্যাড.মো. আশরাফ আলী,এ্যাড. বেগম বদরুন্নাহার,এ্যাড. নিরঞ্জন কুমার ঘোষ, এ্যাড.মো. আব্দুস সালাম, এ্যাড.জি এম মুরাদ হাসান, এ্যাড.মো. মোস্তাফিজুর রহমান, এ্যাড.মো. মুরাদজ্জামান রব্বানী, এ্যাড.মো. আব্দুর রশীদ,এ্যাড. খন্দকার মঞ্জুরুল করিম সোহেল ও এ্যাড.মো. জাহাঙ্গীর আলম সরকার জিন্নাহ। ১৭ আইনজীবীর পক্ষে গাইবান্ধার জেলা আইনজীবী সমিতির গত ২ জুনের সিদ্ধান্ত ও নোটিশ অ্যার্টনি জেনারেল মাহবুবে আলম আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে আজ রোববার বিচারপতি জে বি এম হাসানের ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। এ আদেশের ফলে ওই আইনজীবীরা ভার্চুয়াল কোর্টে পেশা পরিচালনা করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা মাহবুবে আলম। উল্লেখ্য, এর আগে গত ২ জুন গাইবান্ধায় ভার্চুয়াল কোর্টে মামলা পরিচালনা করায় ১৫ আইনজীবীর সদস্যপদ স্থগিত করে গাইবান্ধা জেলা বার অ্যাসোসিয়েশন। একইসঙ্গে তাঁদের সদস্যপদ কেন বাতিল করা হবে না এই মর্মে কারণ দর্শাতে বলা হয়। এরপর গাইবান্ধা জেলা আইনজীবী সমিতির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সরণাপন্ন হন ওই  ১৭ আইনজীবী।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য