ছেলেকে বাঁচাতে মা-বাবা'র আবেদন

ছেলেকে বাঁচাতে মা-বাবা'র আবেদন

ঝিনাইদহের কোট চাঁদপুরের একটি পরিবারের লালিত স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হতে বসেছে। কলেজপড়ুয়া অসুস্থ ছেলেকে বাঁচাতে প্রাণপণ চেষ্টা বাবা-মায়ের। যৎসামান্য যা কিছু জমি ছিল তাও বিক্রি হয়ে গেছে এরই মধ্যে। তাতেও কূল-কিনারা পাচ্ছেন না পিতা-মাতা। এ পর্যন্ত ১৬ লাখ টাকা খরচ হয়ে গেছে। শেষ পর্যন্ত অর্থের অভাবে ছেলের শেষ পরিণতি চেয়ে চেয়ে দেখা ছাড়া আর কোনো উপায় দেখছেন না তাঁরা।
রোগী ইকবাল হাসা
ডেস্ক রিপোর্টঃ
ঝিনাইদহের কোট চাঁদপুরের একটি পরিবারের লালিত স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হতে বসেছে। কলেজপড়ুয়া অসুস্থ ছেলেকে বাঁচাতে প্রাণপণ চেষ্টা বাবা-মায়ের। যৎসামান্য যা কিছু জমি ছিল তাও বিক্রি হয়ে গেছে এরই মধ্যে। তাতেও কূল-কিনারা পাচ্ছেন না পিতা-মাতা। এ পর্যন্ত ১৬ লাখ টাকা খরচ হয়ে গেছে। শেষ পর্যন্ত অর্থের অভাবে ছেলের শেষ পরিণতি চেয়ে চেয়ে দেখা ছাড়া আর কোনো উপায় দেখছেন না তাঁরা।

কোটচাঁদপুর পৌরশহরের বাসিন্দা শরিফুল ইসলাম। তিনি একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। তিনি জানান, ছেলে ইকবাল হাসান (২৪) কে নিয়ে ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখতেন একটু বেশিই। সে জন্য ছেলেকে মানুষের মতো মানুষ করতে কলেজে পড়ান। ছেলে ইকবাল হাসান এবার কোটচাঁদপুর সরকারি কলেজের ম্যানেজমেণ্ট বিভাগের অনার্সের ফাইনাল ইয়ারের পরীক্ষার্থী। গত ৫ মাস আগে হঠাৎ ইকবাল হাসান অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাকে যশোহর বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দেখিয়ে অবস্থার পরিবর্তন না হওয়ায় ইকবালকে নেওয়া হয় ঢাকাতে। বর্তমানে সে আগারগাঁও নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে ডা. দীন মোহাম্মদের অধীনে চিকিৎসাধীন। ডাক্তার বলেছেন, ইকবাল হাসান মায়েস্থেনিয়া গ্রাভিস ইউথ থাইমোমা রোগে ভুগছেন। তার অবস্থা সংকটাপন্ন। এ মুহূর্তে তার অপারেশন প্রয়োজন।  

শরিফুল ইসলাম জানান, ছেলে ইকবালের অপারেশন করতে এখনো ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা প্রয়োজন। এলাকার স্কুল-কলেজ থেকে ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকরা স্ব-উদ্যোগে কিছু টাকা তুলে পাঠিয়েছেন। ছেলেকে বাঁচাতে দেশের অন্যান্য স্কুল-কলেজ ও দানশীল-দয়াবান-বিত্তশালী ব্যক্তিরা যদি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন তাহলে আমার ইকবাল আল্লাহর রহমতে জীবন ফিরে পেতে পারে। 

সাহায্যে পাঠাবার ঠিকানা
শরিফুল ইসরাম, ব্যাংক অ্যাকাউণ্ট নম্বর : ২০৫০৩০০০১০০০০৩৩১৫, ইসলামী ব্যাংক, কোটচাঁদপুর শাখা, ঝিনাইদাহ।
বিকাশ ০১৭১২৫৫০০৬৫
রকেট ০১৯১১৪৩৭৪৬৫০
/কালের কন্ঠ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য