সৈয়দপুর থেকে ধান কাটার জন্য ৪৪ কৃষি শ্রমিককে নাটোর-নওগাঁয় প্রেরণ


মিজানুর রহমান মিলন, সৈয়দপুরঃ

সৈয়দপুর উপজেলা থেকে জরুরীভিত্তিতে ধান কাটার জন্য ৪৪ জন কৃষি শ্রমিক পাঠানো হয়েছে। গত দুই দিনে এসব কৃষি শ্রমিক নাটোর ও নওগাঁ জেলায় পাঠানো হয়। আজ সোমবার পাঠানো হয়েছে ৩০ জন শ্রমিক। এর আগে গতকাল রবিবার পাঠানো হয় ১৪ জন কৃষি শ্রমিককে। কৃষি বিভাগ সূত্র জানায়, নাটোর ও নওগাঁ জেলায় ধান কাটার জন্য কৃষি শ্রমিকের সংকট কাটাতে বিশেষ ব্যবস্থায় কৃষি শ্রমিক পাঠানো শুরু হয়েছে। 

আজ সোমবার দুপুর ১২টায় উপজেলা চত্বর থেকে উপজেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় দ্বিতীয় দফায় ১৫ জন কৃষি শ্রমিকের একটি দলকে নাটোর জেলার সিংড়া উপজেলায় এবং ১৫ জনের অপর একটি শ্রমিকের দলকে নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলায় পাঠানো হয়। এর আগে প্রথম দফায় রবিবার ১৪ জনের একটি দলকে নাটোরের সিংড়ায় পাঠানো হয়। বিশেষ ব্যবস্থায় মাইক্রোবাসে কৃষি শ্রমিকদের যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে তাদের কাছে সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা কৃষি অফিসারের যৌথ স্বাক্ষরিত একটি প্রত্যায়নপত্র কৃষি শ্রমিকদের দলনেতার হাতে তুলে দেয়া হয়। 

এছাড়াও করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে কৃষি শ্রমিকদের ব্যবহারের জন্য  উপজেলা প্রশাসন থেকে একটি করে মাস্ক দেয়া হয়। এসব শ্রমিকদের হাতে ওই মাস্ক তুলে দেন উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মোখছেদুল মোমিন। এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নাসিম আহমেদ, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ শাহিনা বেগম, কৃষিবিদ মমতা সাহা ও মো. সালাহউদ্দিনসহ উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সৈয়দপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ শাহিনা বেগম জানান, ধান কাটায় পাঠানো এসব শ্রমিকের সকলের বাড়ি সৈয়দপুর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও সদস্যদের মাধ্যমে কৃষি বিভাগ শ্রমিকদের তালিকা সংগ্রহ করা হয়। গত দুই দিনে নাটোর ও নওগাঁ জেলায় মোট ৪৪ জন কৃষি শ্রমিককে পাঠানো হয়েছে। এখন থেকে পর্যায়ক্রমে দেশের বিভিন্ন জেলায় প্রয়োজন অনুযায়ী ধান কাটা শ্রমিকদের পাঠানো অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি। 

উল্লেখ্য, বর্তমানে ইরি-বোরো’র ভর মৌসুম। ইতোমধ্যে রাজশাহী বিভাগের বিভিন্ন জেলায় আগাম জাতের ইরি-বোরো ধান কাটা-মাড়াইয়ের কাজ পুরোদমে শুরু হয়েছে। কিন্তু চলমান করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে দেশব্যাপী চলছে কঠোর লকডাউন। এতে করে সকল যানবাহন চলাচল একেবারে বন্ধ রয়েছে। ফলে ধান কাটতে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলো যেতে পারছেন না এ অঞ্চলের কৃষি শ্রমিকরা। এ অবস্থায় সরকারের নির্দেশে প্রশাসনের বিশেষ ব্যবস্থায় সৈয়দপুর উপজেলা থেকে দেশের অন্যান্য জেলায় কৃষি শ্রমিক পাঠানো হচ্ছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য