সুন্দরগঞ্জে অবসরকালিন ও কল্যান ভাতা না পেয়ে এক শিক্ষকের মানবেতর জীবন


আঃ মতিন সরকার  গাইবান্ধা  প্রতিনিধিঃ চাকুরি থেকে অবসরে যাওয়ার প্রায় দুবছর অতিবাহিত হলেও এখনো অবসরকালিন কল্যান ভাতা না পেয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে চরম মানবেতর জীবন যাপন করছে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কঞ্চিবাড়ী ইউনিয়নের নুতন দুলাল গ্রামের মাওলানা সিরাজ উদ্দিন আকন্দ। জানা যায় সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কঞ্চিবাড়ী ইউনিয়নের বজরাকঞ্চিবাড়ী মজিদিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা সিরাজ উদ্দিন আকন্দ ২০১৮ সালের জুলাই মাসের ৩০ তারিখে অবসারে  যান। মাদ্রাসার প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সহ-সুপার শহিদুল ইসলামকে ভারপ্রাপ্ত সুপারের দায়িত্ব দেওয়া হয়। তখন এডহক কমিটি দ্বারা মাদ্রাসাটি পরিচালিত হয়। অবসরে যাওয়া সুপার মাওলানা সিরাজ উদ্দিন আকন্দ অবসরকালিন কল্যান ভাতার আবেদন করলে এডহক কমিটির সভাপতি আশরাফুল আলম চাকলাদার লিটন তাকে বলেন এডহক কমিটির সভায় অবসরকালিন কল্যান ভাতার জন্য আবেদন পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া যাবে না। পুনাঙ্গ কমিটির সভায় আবেদন পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসের তারিখে এডহক কমিটির মেয়াদ শেষ হলে ভারপ্রাপ্ত সুপার শহিদুল ইসলাম নিজের স্বার্থ হাসিরের জন্য গোপনে কমিটির গঠন করে। উক্ত সভাপতি করা হয় আশরাফুল আলম চাকলাদার লিটনকে। গত জানুয়ারী মাসের ২১ তারিখে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের নিকট থেকে কমিটির অনুমোদন গ্রহণ করা হয়। এরপর অবসর প্রাপ্ত সুপার মাওলানা সিরাজ উদ্দিন আকন্দ অবসরকালিন কল্যান ভাতার আবেদন নিয়ে আবার কমিটির দারস্থ হলে সভাপতি আশরাফুল আলম চাকলাদার লিটন অদৃশ্য কারণে তালবাহনা শুরু করে। ফলে চরম বিপাকে পড়ে মাওলানা সিরাজ উদ্দিন আকন্দ। কমিটির সদস্য মকবুল হোসেন বলেন একজন অবসর প্রাপ্ত শিক্ষকের সাথে ধরণের আচারণ মানবতা পরিপন্থি। তিনি আরও বলেন এই পকেট কমিটির নিয়মিত সভা হয়।  ভারপ্রাপ্ত সুপার শহিদুল ইসলাম নিজের ইচ্ছামত রেজুলেশন লেখে সদস্যদের স্বাক্ষর গ্রহণ করে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য