উপকূলের আরও কাছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল

ডেস্ক নিউজঃ
বঙ্গোপসাগর থেকে উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’। উপকূলের আরও কাছে এগিয়ে এসেছে এই ঘূর্ণিঝড়। আবহাওয়াবিদেরা বলছেন, আজ শনিবার সন্ধ্যার পর বুলবুল পশ্চিমবঙ্গ ও খুলনা উপকূল দিয়ে সমতলে আঘাত হানবে। এ সময় বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ১০০ থেকে ১২০ কিলোমিটার। উপকূলের আটটি জেলা সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, বরগুনা, পিরোজপুর, পটুয়াখালী, ভোলা ও চাঁদপুর ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে।
সাগরে বুলবুলের বেগ আরও বেশি। আজ আবহাওয়া অধিদপ্তরের সবশেষ বিশেষ বুলেটিনে বলা হয়েছে, উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ উত্তর-উত্তর পূর্ব দিকে প্রতি ঘণ্টায় প্রায় ১৫ কিলোমিটার বেগে অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় (২১.০ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৮.০ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ) অবস্থান করছে। এটি আজ শনিবার বিকেল তিনটায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৪৫ কিলোমিটার পশ্চিম-দক্ষিণ পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৪৫ কিলোমিটার পশ্চিম-দক্ষিণ পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ২৪০ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ২৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও উত্তর ও উত্তর পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে আজ সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত নাগাদ পশ্চিমবঙ্গ-খুলনা উপকূল (সুন্দরবনের নিকট দিয়ে) অতিক্রম করতে পারে। ঘূর্ণিঝড়টির প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় দমকা ও ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যাচ্ছে।
আবহাওয়াবিদ আরিফ হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, আজ সন্ধ্যা নাগাদ যখন ঘূর্ণিঝড় বুলবুল উপকূলে আঘাত হানবে, সেই সময়টায় এসব অঞ্চলের নদ-নদী গুলো এবং সাগরে জোয়ার থাকবে। জোয়ারের পানি বৃদ্ধির প্রভাবে জলোচ্ছ্বাসের মাত্রা বেশি হবে। তিনি জানান, উপকূলের আটটি জেলা সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, বরগুনা, পিরোজপুর, পটুয়াখালী, ভোলা ও চাঁদপুর ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে।
আরিফ হোসেন বলেন, পশ্চিমবঙ্গ ও খুলনা উপকূলে আঘাত হানার পর ঘূর্ণিঝড় বুলবুল দেশের মধ্যাঞ্চলের ওপর দিয়ে হয়ে যাবে। এর প্রভাবে কাল রোববার ঢাকাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে ভারী বৃষ্টি হতে পারে।
আবহাওয়া দপ্তরের সবশেষ বিশেষ বুলেটিনে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে উপকূলীয় এলাকায় ৫ থেকে ৭ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে।
সাতক্ষীরার শ্যামনগরের পর্যটন ব্যবসায়ী সালাউদ্দিন বাপ্পী প্রথম আলোকে বলেন, ‘ঝড়টি সন্ধ্যায় আঘাত হানবে বলে শুনছি। এতে বড় জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা থাকায় আমরা বিপদে পড়ে যাব। কারণ গতকাল এখানে জোয়ার শুরু হয়েছিল বিকেল পাঁচটায়। আর পূর্ণ জোয়ার হয় রাত সাড়ে আটটায়। তাই সন্ধ্যায় আঘাত হানলে জোয়ার বেশি হয়ে বড় জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা রয়েছে।’
ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ১০ নম্বর আর চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরকে ৯ নম্বর মহাবিপৎসংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য